নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ নভেম্বর ২০১৪, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২১, ২৪ মহররম ১৪৩৬
কদমতলীর আনোয়ারা হত্যাকাণ্ডের তদন্তে ভাটা পুলিশের আচরণ রহস্যজনক শঙ্কিত বাদীপক্ষ
স্টাফ রিপোর্টার
রাজধানীর কদমতলীতে মা আনোয়ারা বেগম মনিকে হত্যাকা- তদন্তে ভাটা পড়েছে। থানা পুলিশ ঘটনার তদন্তে কোনো গুরুত্ব দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করে হত্যাকা-ে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও সুষ্ঠু তদন্ত করতে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, আইজিপি ও ডিএমপি কমিশনারের হস্তক্ষেপের দাবি জানালেন নিহতের ছেলে মো. সোহেল রানা। গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ক্রাইম রিপোর্টার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানালেন ছেলে মো. সোহেল রানা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, তার বড় চাচা হাজী আব্দুর রশীদ ও মামা মো. ওমর ফারুক। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানানো হয়, গত ১৯ অক্টোবর রোববার কদমতলী থানা এলাকার জনতাবাগের ১৭৩৭ নম্বর বাড়ির চতুর্থ তলায় (জননী ভিলা) ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় আনোয়ারা বেগম মনিকে (৫০)। তার স্বামী জয়নাল আবেদীন সৌদি প্রবাসী ও একমাত্র ছেলে সোহেল লন্ডনে থাকায় তাকে ওই বাড়িতে একাই থাকতে হতো। ঘটনার দিন তিনি ওই বাসায় একা ছিলেন। বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৫টার মধ্যে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে। দুর্বৃত্তরা বাসার ভেতরে ঢুকে ওয়্যার ড্রপ থেকে নগদ ৫০ হাজার টাকা ও দুইটি মোবাইল সেট নিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। নিহতের ছেলে সোহেল রানা জানান, হত্যাকা-ের পরদিন ২০ অক্টোবর জয়নাল আবেদীন সৌদি থেকে দেশে এসে ওই দিন রাতেই কদমতলী থানায় অজ্ঞাতদের আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন (মামলা নম্বর-৩৫, ২০/১০/২০১৪ইং)। ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কদমতলী থানার এসআই সালেহ আহমেদ ওই ঘটনার বিষয়ে বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলেন ও তদন্ত শুরু করেন। এ সময় সন্দেহজনক তথ্য দেয়ার কারণে ওই দিনই ওই বাড়ির সিকিউরিটি গার্ড খোকন ভান্ডারিকে আটক করেন। এরপর তাকে ছেড়ে দিয়ে দুই দিন পর আবার তাকে গ্রেফতার করে থানা হেফাজতে আনা হয়। এছাড়াও গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ঘটনা উদ্ঘাটনে থানা পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তা প্রদান করে আসছিল। এ ঘটনার প্রথম দিকে পুলিশের ব্যাপক তৎপরতা ছিলো। কিন্তু এর কিছুদিন পর থেকে পুলিশের তৎপরতায় ভাটা পড়ে। তাদের আচরণ রহস্যজনক মনে হতে থাকে। যা আমাদেরকে শংকিত করে তুলছে। এরই মধ্যে প্রায় এক মাস পার হলেও পুলিশ ওই হত্যাকান্ডের কোনো ক্লু খুঁজে বের করতে পারেননি। যা ওই পরিবারের সদস্যদের গভীর হতাশায় নিমজ্জিত করেছে। বাড়ির দারোয়ানকে আটক করার পর সে পুলিশকে জানিয়েছে, দুই জন অপরিচিত ব্যক্তি ৩টার দিকে ওই বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করেন। তাদের পরিচয় জানতে চাইলে তারা জানায় ৬ষ্ঠ তলার ভাড়াটিয়া ইলিয়াস সাহেবের বাসায় যাচ্ছি। পরে ইলিয়াস সাহেবকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান ওই দুইজন ব্যক্তি তার বাসায় যায়নি। তিনি আরো জানান, তার প্রবাসী পিতা জয়নাল আবেদীন দ্বিতীয়বার বিয়ে করেছেন। তবে তাদের সাথে কোনো ধরনের বিরোধ নেই। তবে পরিচিত লোক ছাড়া ওই বাসায় কেউ প্রবেশ করতে পরতো না। পরিচিতরাই তার মা আনোয়ারা বেগম মনিকে হত্যা করেছে। সোহেল রানা তার মায়ের খুনিদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে প্র্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, আইজিপি, র‌্যাব ডিজি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের (ডিএমপি) কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানান।


Fatal error: Uncaught exception 'PDOException' with message 'SQLSTATE[HY000]: General error: 26 file is encrypted or is not a database' in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php:7 Stack trace: #0 /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php(7): PDO->query('Update newsHitC...') #1 /home/janata/public_html/lib/index.php(135): require('/home/janata/pu...') #2 /home/janata/public_html/web/details.php(10): lib->newsHitCount() #3 /home/janata/public_html/web/index.php(28): include('/home/janata/pu...') #4 /home/janata/public_html/index.php(15): include('/home/janata/pu...') #5 {main} thrown in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php on line 7