নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার, ৪ আগস্ট ২০১৪, ২০ শ্রাবণ ১৪২১, ৭ শাওয়াল ১৪৩৫
বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি
স্টাফ রিপোর্টার
বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় চলমান বিতর্কে বিশ্বের দরিদ্র দেশের দরিদ্রতর জনগোষ্ঠীর খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান স্পষ্ট ও জোরালো করা, কৃষিতে মূল্য সহায়তা, সরকারি উদ্যোগে খাদ্য মজুদ এবং তার ভর্তুকি মূল্যে সুষ্ঠু বিতরণ ব্যবস্থা গড়ে তোলার পক্ষে ভারত উত্থাপিত ইস্যুতে ইতিবাচক অবস্থান নেওয়ার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানায় অধিকার ভিত্তিক ১২টি সংগঠন। গতকাল রোববার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে অনলাইন নলেজ সোসাইটি ও ইক্যুইটিবিডি'সহ ১২টি অধিকার ভিত্তিক সংগঠনের যৌথ উদ্দ্যোগে আয়োজিত 'শুধু ধনী দেশ ও তার বহুজাতিক কোম্পানির বাণিজ্য নয়, বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ দরিদ্র মানুষের খাদ্য নিরাপত্তার জন্য স্থ্থায়ী সমাধানও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থাকেই করতে হবে। সাংবাদিক সম্মেলনে খাদ্যকে মুনাফা তাড়িত বাণিজ্যের বাইরে রাখার আহ্বান জানান সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ।

সাংবাদিক সম্মেলনের সঞ্চালক ইক্যুইটিবিডি'র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, নদী ভাঙন, জলবায়ু পরিবর্তন, নগরায়ন, অপরিকল্পিত রাস্তাঘাট ও অপরিকল্পিত উন্নয়নের কারণে বাংলাদেশ প্রতি বছর ৮৮ হাজার হেক্টর কৃষি জমি হারাচ্ছে। এর সাথে সাথে জনসংখ্যাও দিন দিন বেড়েই চলেছে। ২০ বছর পরে বর্ধিত জনসংখ্যার জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য যোগান দেয়া প্রায়ই অসম্ভব হয়ে উঠবে। আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টাকা থাকলেও যদি অন্য দেশ আমাদের কাছে খাদ্য বিক্রি না করে তাহলে আমাদের কী হবে? ফলে এই মুহূর্তে কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তাই আমাদের জন্য সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর একারণেই কোনও দ্বিধা ছাড়াই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় এ বিষয়ে ভারতের প্রস্তাবিত অবস্থানকে আমাদের সমর্থন জানানো উচিৎ।

তিনি বলেন, বাণিজ্য সহায়তা চুক্তি বাস্তবায়িত হলে ভবিষ্যতে ডিউটি ফ্রি কোটা ফ্রি বাজার সুবিধার কোনও অস্তিত্ব থাকবে না। অথচ বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোকে বারবার বাণিজ্য সহায়তা চুক্তির বদলে এই ডিউটি ফ্রি কোটা নামের সোনার হরিণের লোভ দেখানো হচ্ছে। তিনি বলেন, এই বাণিজ্য সহায়তা চুক্তি (টিএফএ) এসব দেশের মানুষের কোনও উপকারেই আসবে না, এর সুবিধা ভোগ করবে বহুজাতিক কোম্পানি ও ধনী দেশগুলো। এর মাধ্যমে আসলে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ধনী দেশ এবং তাদের বহুজাতিক কোম্পানির স্বার্থ চরিতার্থ করার চেষ্টা করছে।

সুরক্ষা ও অগ্রগতি ফাউন্ডেশনের জীবননান্দ জয়ন্ত বলেন, ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশে যে দুর্ভীক্ষ হয়েছিল সেটা ছিল একান্ত একটি আন্তর্জাতিক খাদ্য রাজনীতির পরিণাম। যার ফলে মারা গিয়েছিল লাখো মানুষ। উন্নত বিশ্বের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে আমাদের সজাগ থাকতে হবে। উন্নত দেশগুলো বার বার তাদের প্রতিশ্রুতি ভাঙছে, তাদেরকে আর বিশ্বাস করা ঠিক হবে না। আমরা এমডিজি পুরণে যথেষ্ট অগ্রগতি সাধন করেছি, কিন্তু এই লক্ষ্য অর্জনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ধনী দেশগুলো তাদের আন্তর্জাতিক সহায়তা তহবিলের প্রতিশ্রুতি পালন করেনি। আর তাই বাণিজ্য সহায়তা চুক্তির বিনিময়ে তারা যে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে সেগুলোও যে তারা রাখবে না সেটা নিশ্চিত। তাই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ে বাংলাদেশের স্পষ্ট অবস্থান নেয়া দরকার। আমরা বাণিজ্য সহায়তা চুক্তি নয়, ডবিস্নউটিওতে ভারতের প্রস্তাবিত কৃষিমূল্য সহায়তা, সরকারি খাদ্য মজুদ ও তার বিতরণ বিষয়ে উত্থাপিত ইস্যুর পক্ষে অবস্থান নেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে আহবান জানাই।

সংবাদিক সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ইক্যুইটিবিডি'র বরকত উল্লাহ মারুফ, উন্নয়ন ধারা ট্রাস্টের আমিনুর রসূল বাবুল, সমাজ'র শবনম হাফিজ, লেবার রিসোর্স সেন্টারের শিবলি আনোয়ার প্রমুখ।

Fatal error: Uncaught exception 'PDOException' with message 'SQLSTATE[HY000]: General error: 26 file is encrypted or is not a database' in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php:7 Stack trace: #0 /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php(7): PDO->query('Update newsHitC...') #1 /home/janata/public_html/lib/index.php(135): require('/home/janata/pu...') #2 /home/janata/public_html/web/details.php(10): lib->newsHitCount() #3 /home/janata/public_html/web/index.php(28): include('/home/janata/pu...') #4 /home/janata/public_html/index.php(15): include('/home/janata/pu...') #5 {main} thrown in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php on line 7