নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রোববার ১৭ জুন ২০১৭, ৩ আষাঢ় ১৪২৪, ২১ রমজান ১৪৩৮
নিম্নমানের খাদ্য
কমলগঞ্জে চা শ্রমিকদের মধ্যে খাদ্য সহায়তায় চরম অনিয়ম
কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় সমাজসেবা অধিদফতরের উদ্যোগে চা-বাগানে খাদ্য ও পণ্য সামগ্রী বিতরণে চরম নিম্নমান ও ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। চা-শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারের ধারাবাহিক খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির অংশ হিসেবে নিম্নমানের এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়। গত শনিবার বিকালে মাধবপুর চা বাগানে ১ হাজার ১৯৭টি পরিবার ও কুরমা চা বাগানে ৪ শত ৯১ পরিবারের মধ্যে জনপ্রতি ৫ হাজার টাকার সমপরিমাণের খাদ্য ও পণ্য সহায়তা বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ মো. আব্দুস শহীদ এমপি। এর মধ্যে রয়েছে ৪৫ কেজি করে চাল, ৯ কেজি ডাল, ১৫ কেজি আলু, ১৫ কেজি আটা, ৬ লিটার সেয়াবিন তেল, ৬টা সাবান, ১টা শাড়ি ও ১টা করে লুঙ্গী।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে চা শ্রমিকদের অভিযোগে সত্যতা পেয়ে সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ মো. আব্দুস শহীদ এমপি নিম্নমানের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ বন্ধ রাখেন। চা শ্রমিকরা বলেন, অত্যন্ত নিম্নমানের চাল, আটা, আলু বিতরণ করা হয়। যেগুলো খাবার উপযোগি নয়। কুরমা চা বাগানের মধ্য লাইনের মতি কানু বলেন, পঁচা আলু, খাবার অনুপযোগী চাল, ডাল খেয়ে নিজেই অসুস্থ হয়ে পড়েছি। কৃষ্ণ মোহন তেলি ও ইন্দ্র ভূমিজ বলেন, চা শ্রমিকদের এতই নিম্নমানের খাবার দেয়া হচ্ছে, এগুলো খেয়ে অসুস্থ হওয়া ছাড়া কোন উপায় নেই। লুঙ্গি ও শাড়ির মান ভাষায় প্রকাশ করার নয় বলে তারা দাবি করেন। চা বাগানের অবস্থাশালী ইউপি সদস্য ও সদস্যাও খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন। এছাড়া কুরমা বাগানের কুনিলাল রজক এর সরকারি চাকরিজীবী দুই ছেলে থাকার পরও খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন। মিজান আলীর দুই ভাই বিদেশে ও পাকা ঘর, বিত্তবান চাকরিজীবি বালক দাস পাইনকার পরিবার, ছেলে বিদেশে ভাগমনিয়ার পরিবার, ২০ কেয়ার জমির রনজিত প্রজাপতি, ব্যবসায়ী ও পাকা ঘরের মালিক গোপাল তেলি এসব সহায়তা পেলেও অসহায় দরিদ্র পরিবার সদস্যরা খাদ্য সহায়তা প্রাপ্তির সুবিধা বঞ্চিত হয়েছেন। বিধানে না থাকলেও দু'বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে ইকবাল মিয়া, রহিম মিয়া, মনফর আলী, কমলা কুর্মী, দীনেশ কানু, জয়নারায়ন লোহার খাদ্য সহায়তা পাচ্ছেন বলে শ্রমিকরা অভিযোগ করেন।

কুরমা চা বাগানের সমাজকর্মী গীতা কানু বলেন, খুবই নিম্নমানের এসব খাবার শুধু চা শ্রমিকদের ভাগ্যেই জুটে! এমপি সাহেব নিম্নমানের দেখে বন্ধ রাখার পরদিন আবার সেগুলো কৌশলে বিতরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, দরিদ্র ও অসচ্ছল পরিবার সদস্যদের মধ্যে দেয়ার কথা থাকলেও সেখানে ব্যাপক অনিয়ম ঘটেছে। তাছাড়া পাঁচ হাজার টাকার খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে মাথাপিছু তিন হাজার টাকার খাদ্য সামগ্রীও হবে বলে মনে হয় না।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২২
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৯৩৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.