নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রোববার ১৭ জুন ২০১৭, ৩ আষাঢ় ১৪২৪, ২১ রমজান ১৪৩৮
দুর্নীতির আখড়া ঢাকা রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেঙ্
স্টাফ রিপোর্টার
ঢাকা রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেঙ্টি কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর কারণে দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে।

জানা গেছে, দেশের ৬৪টি জেলার শীর্ষ দুর্নীতিবাজ প্রধান সহকারী মুজিবুর রহমান ঢাকা রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেঙ্ েযোগদান করার পর থেকেই কমপ্লেঙ্ েজনহয়রানি বেড়ে যায়। পাশাপাশি বেড়ে যায় ঘুষ-দুর্নীতির মাত্রাও। গত ১ বছরে এই দুর্নীতিবাজ প্রধান সহকারী মুজিবুর রহমান ২ জন জেলা রেজিস্ট্রার পার করেন। এসময় সহকারী মোহরার, পিওন, উমেদার, বদলি, নকলনবীশদের পদোন্নতি ও দলিল লেখকদের সনদ প্রদানে ব্যাপক দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন প্রধান সহকারী মুজিবুর রহমান। নানা অজুহাতে কমপ্লেঙ্রে নিরীহ কর্মচারীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন লাখ লাখ টাকা। বিভিন্ন সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দলিলের তদবিরসহ বালাম বইতে অলটার জাল দলিল সৃজনের কমপ্লেঙ্ েপুরাতন সিন্ডিকেটকে পুনরায় সংগঠিত করে সক্রিয় করে তুলেছেন এই দুর্নীতিবাজ প্রধান সহকারী মুজিবুর রহমান।

দুর্নীতি দমন কমিশনে ভুক্তভোগীদের গণস্বাক্ষরিত এক অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মুজিবুর রেজিস্ট্রেশন বিভাগে চাকরিতে যোগদান করেই নানা খাতে দুর্নীতি করে বরিশালে কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন তিনি। তার রয়েছে বরিশাল শহরে বিশাল মার্কেট, ৩টি বিলাসবহুল বাড়ি ও গাড়ি। পটুয়াখালী তার নিজ জেলা শহরেও ২টি আলিশান বাড়ির মালিক তিনি। তার স্ত্রীর নামে রয়েছে ব্যাংকে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার।

অভিযোগে আরও উল্লেখ রয়েছে- ঢাকা জেলায় মোট ২২টি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস রয়েছে। ২২টি রেজিস্ট্রি অফিসে ৮৮ জন সহকারী, মোহরার, টিসি মোহরার, পিয়ন, উমেদারের নিকট থেকে আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব, মন্ত্রীর পিএস, নিবন্ধন পরিদফতরের আইজিআর, আইআরও ও জেলা রেজিস্ট্রারের নাম ভাঙিয়ে সপ্তাহে প্রতি বৃহস্পতিবার এবং প্রতিমাসের প্রথম সপ্তাহের প্রথম সোমবার সাপ্তাহিক ও মাসিক ভিত্তিতে মোটা অংকের চাঁদা আদায় করে থাকেন। কমপ্লেঙ্ ে১২টি অফিস থেকে প্রতি বৃহস্পতিবার অফিস প্রতি গড়ে ৫০ হাজার টাকা ও মাসিক ২ লাখ টাকা আদায় করেন প্রধান সহকারী মুজিবুর রহমান। এছাড়াও ঢাকা শহরের বাইরে সাভার, কেরানীগঞ্জ, আশুলিয়া, কালামপুর, নবাবগঞ্জ, দোহার অফিস থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিচ্ছেন মুজিবুর রহমান। প্রধান সহকারীর এই মোটা অংকের টাকার যোগান দিতে হিমশিম খাচ্ছে বিভিন্ন রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মচারীরা।

ইতোমধ্যে প্রধান সহকারী মুজিবুরের চাঁদা তুলতে গিয়ে কালামপুর রেজিস্ট্রি অফিসের মোহরার ও সহকারীর মধ্যে বিশাল হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। বিষয়টি আইজিআর খান মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান ও জেলা রেজিস্ট্রার দীপক কুমার সরকার জানলেও ঐ চাঁদার ভাগের ১টি অংশ তারা পায় বিধায় মুখে কুলুপ এঁটেছেন তারা। দুর্নীতিবাজ প্রধান সহকারীর বিরুদ্ধে দুদকে দায়ের করা গণস্বাক্ষরিত অভিযোগটি দুদকের বিশেষ অনুসন্ধান বিভাগে তদন্তাধীন রয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২২
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৯৩১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.