নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১১ মে ২০১৬, ২৮ বৈশাখ ১৪২৩, ৩ শাবান ১৪৩৭
সাংবাদিক সম্মেলন
লালবাগে এসিড হামলার 'মিথ্যা' মামলায় আটকদের মুক্তি দাবি
স্টাফ রিপোর্টার
রাজধানীর লালবাগে বাড়ি দখলের জন্য এসিড হামলার ঘটনা সাজিয়ে মিথ্যা মামলায় গৃহবধূ ওরনা বেগমের পরিবারের সকলকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের মুক্তি ও সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক দায়ীদের গ্রেফতারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগির স্বজনরা। গতকাল বুধবার সকালে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেছেন। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গ্রেফতারকৃত ওরনা বেগমের বড় বোন জিন্নতী বেগম, ভাগি্ন ইসমাত আরা, মনোয়ারা বেগম ও সিনথিয়া আক্তার তুসি।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জিন্নতী বেগম বলেন, আমার ছোট বোন ওরনা বেগম, স্বামী আব্দুস সাত্তার। লালবাগ থানার ৫৩ নম্বর ডুরিআঙ্গুল লেনের নিজ বাড়িতে এক ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে বসবাস করেন। তার মেয়ে বদরুননেছা কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আর ছেলে ওয়েস্টিন স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। এলাকার তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী চঞ্চল, লিটন, জাহিদ, এসএম সেলিম, সাবের, সেতারা বেগম ও আবু বক্কর দীর্ঘদিন ধরে তার বাড়িটি দখলের চেষ্টা চালিয়ে আসছে। তারা বিভিন্নভাবে হুমকি ও বড় ধরনের ক্ষতির হুমকি দেন।

তিনি বলেন, গত ২১ মার্চ/২০১৬ লালবাগ থানায় ৯৩০ নম্বর সাধারণ ডায়েরি করা হয়। কিন্তু পুলিশ সাধারণ ডায়েরির তদন্ত নিয়ে গরিমসি করেছে। পরে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের হস্তক্ষেপে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এতে সন্ত্রাসী চঞ্চল, লিটনসহ তার সহযোগীরা ক্ষিপ্ত হয়। পরে ১ এপ্রিল তার বাড়িতে হামলা চালিয়ে আমার বোনকে মারধর করে। এসময় তার মেয়ে সুচনা এগিয়ে গেলে চঞ্চল ও লিটন তাকে শারীরিক নির্যাতনসহ শ্লীলতাহানি করে। এরপর প্রতিবাদ করায় তার ছোট ভাইকেও মারধর করে। লালবাগের পুলিশ খবর পেয়ে তাদেরকে উদ্ধার ও হামলাকারীদের আটক করে। এ ঘটনায় ওরনা বেগম মামলা করতে চাইলে পুলিশ মামলা গ্রহণ করেনি। পরে নুরুল ইসলাম নামে এক এসআই বিচারের কথা বলে দুই পক্ষকেই থানা থেকে নিয়ে আসে।

জিন্নতী বেগম আরো জানায়, সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত ওরনা বেগমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসা নিয়ে বাড়িতে ফেরার পর সন্ত্রাসী চঞ্চল ও তার সহযোগীরা আমার বোনের কলেজ পড়ুয়া মেয়ে সুচনাকে পুনরায় ইভটিজিং ও শ্লীতাহানি ও মারধর করে। লালবাগ নবাবগঞ্জ ফাঁড়ির ইনচার্জ ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

গত ২৮ এপ্রিল বিকালে ওরনার ছেলে স্কুলছাত্র সালাম কোচিং শেষে বাড়িতে ফেরার সময় চঞ্চল ও লিটন বহিরাগত সন্ত্রাসীদের সহযোগিতায় তাকে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করে। পরে তার মা, বোন ও বাবা সেখানে গেলে তাদেরকেও আটকের পর মারধর করে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, তারা চঞ্চলের মায়ের হাতে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ করে তাদেরকে মারধর করে। পরে পুলিশ তাদের পরিবারের সকলকেই উদ্ধারের পর থানায় নিয়ে এসিড হামলার মামলায় গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায়।

জিন্নতী বেগম বলেন, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশ কোন ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো নির্যাতিতদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করেছে। শুধু তাই নয়, তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠায়। আদালত রিমান্ডের আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এখন তারা কাশিমপুর কারাগারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তাই সাজানো এই এসিড নিক্ষেপের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীকে সনাক্ত পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং নিরীহ পরিবারটি মুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ২৫
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৭
মাগরিব৫:২৮
এশা৬:৪১
সূর্যোদয় - ৬:০০সূর্যাস্ত - ০৫:২৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৭৭৮.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.