নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ৪ মে ২০২১, ২১ বৈশাখ ১৪২৮, ২১ রমজান ১৪৪২
নগদ সহায়তা থেকে বাদ পড়েছেন দেশের ৬ লাখ ৫৮ হাজার মানুষ
স্টাফ রিপোর্টার
চলতি বছর করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন পেশার স্বল্প আয়ের প্রায় ৩৫ লাখ মানুষকে নগদ সহায়তা দেয়ার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করছে সরকার। তবে উপকারভোগীদের জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য ও মোবাইল সিম নিবন্ধনের তথ্যের অমিলসহ নানা অসঙ্গতিতে সুবিধাভোগীর তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন ৬ লাখ ৫৮ হাজার ৯২২ জন। গতকাল সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন একটি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে নগদ অর্থ সহায়তা দেয়া কর্মসূচি বাস্তবায়ন প্রতিবেদনের তথ্য বলছে, বহুমুখী যাচাইয়ের পর বিভিন্ন ধরনের অসঙ্গতি থাকায় তাদের আর্থিক সহায়তা দেয়ার অযোগ্য বিবেচনা করা হয়। বিবরণের বলা হয়েছে, গত বছরে দেয়া অর্থ উত্তোলন না করায় ফেরতপ্রাপ্ত ইলেকট্রিক ফান্ড ট্রান্সফার (ইএফটি) ৩ লাখ ৩৪ হাজার ১৯৩ জন, সরকারি কর্মচারী ৮২ জন, সরকারি পেনশনভোগী ৫০৭, ৫ লাখ টাকার অধিক সঞ্চয়পত্রের মালিক ২ হাজার ৫৮৪ জন, অন্যান্য সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্তি ৩ লাখ ২১ হাজার ৩৪৪ জন ও মোবাইল অ্যাকাউন্ট মিসম্যাচ যেমন-হিসাব বন্ধ, এজেন্ট অ্যাকাউন্ট, বস্নক অ্যাকাউন্ট ইত্যাদি কারণে ২১২সহ মোট ৬ লাখ ৫৮ হাজার ৯২২ জন। সূত্র বলছে, ২০২০ সালের ১২ মে প্রধানমন্ত্রী মুজিববর্ষে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ পরিবারের মধ্যে সরকার থেকে ব্যক্তি (জিটুপি) পদ্ধতিতে 'নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান কর্মসূচি' উদ্বোধন করেন। এজন্য মাঠ পর্যায়ে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে আইসিটি বিভাগের আওতায় সরকারের সেন্ট্রাল এইড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিএএমএস) সফটওয়্যারের মাধ্যমে মোট ৪৯ লাখ ৩০ হাজার ১৫৪ জনের নাম তালিকাভুক্ত করা হয়। পরে এই তালিকা অর্থ বিভাগে পাঠানো হয়। অর্থ বিভাগ পুনরায় বিভিন্নভাবে যাচাই-বাছাই শেষে আর্থিক সহায়তার জন্য ৩৪ লাখ ৯৭ হাজার ৩৫৩ জনের নাম তালিকাভুক্ত করে। তালিকাভুক্তদের জনপ্রতি ২৫০০ টাকা করে দেয়া হয়। এতে সরকারের ব্যয় হয় মোট ৮৭৯ কোটি ৫৮ লাখ ৪২ হাজার ৭৯৫ টাকা। বাদ যাওয়া ১৪ লাখ ৩২ হাজার ৮০১ জনের তথ্যে বিভিন্ন ক্রটি থাকায় তাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়নি। চলতি বছরও একই কর্মসূচির আওতায় দ্বিতীয়বারের মতো নগদ সহায়তা দিতে গত বছরের তালিকাকে ভিত্তি ধরে করার নির্দেশনা দেয়া হয়। পরে অর্থ মন্ত্রণালয় ওই তালিকা অনুযায়ী সব তথ্য পুনরায় যাচাই-বাছাই করে। বহুমুখী যাচাইয়ের পর আগের উপকারভোগী ৩৪ লাখ ৯৭ হাজার ৩৫৩ জনের মধ্যে ২৮ লাখ ৩৮ হাজার ৪৩১ জনের তথ্য সঠিক পাওয়া যায়। এরাই ২০২১ সালে নগদ আর্থিক অনুদান পাওয়ার যোগ্য বিবেচিত হয়। আর আগের তালিকা থেকে বাদ পড়েন ৬ লাখ ৫৮ হাজার ৯২২ জন। মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে নগদ সহায়তার টাকা দেয়া হবে। এর মধ্যে ডাক বিভাগের 'নগদ'র মাধ্যমে দেয়া মোট টাকার ৪৭ শতাংশ বা ৩৩৪ কোটি ৯১ লাখ ৮০ হাজার ২৩০ টাকা, বিকাশের মাধ্যমে ২৯ শতাংশ বা ২০৪ কোটি ৮৫ লাখ ৩২ হাজার ৮৯০ টাকা, রকেটে ২১ শতাংশ বা ১৫১ কোটি ২৩ লাখ ৬২ হাজার ৫৫৫ টাকা এবং ব্যাংক পেমেন্ট করা হবে তিন শতাংশ বা ২২ কোটি ৮৫ লাখ ৭৮ হাজার ২৯০ টাকা। এবার শিওর ক্যাশ এ সংক্রান্ত সেবা প্রদান না করায় প্রতিষ্ঠানটিকে বাদ দেয়া হয়। প্রসঙ্গত, ২০২০ সালে নগদ সহায়তার টাকা দিতে নানা ধরনের অনিয়মের তথ্য পাওয়া যায়। ওই সময় অনেক স্বচ্ছল রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ক্ষতিগ্রস্তদের নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২২
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১২৫৪১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.