নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ নভেম্বর ২০১৪, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২১, ২৪ মহররম ১৪৩৬
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সফটওয়্যার ত্রুটি
১৬ কমার্শিয়াল কলেজের ২০ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তির আবেদনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত
ফেনী থেকে মফিজুর রহমান
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সফটওয়ার ত্রুটির কারণে ফেনী জেলাসহ দেশের ১৬টি সরকারি কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটের প্রায় ২০ হাজার ছাত্রছাত্রী এ বছর অনার্সে ভর্তির জন্য আবেদন করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ভর্তির আবেদন অনলাইনে জমা দেয়ার শেষ তারিখ ২০ নভেম্বর। ভর্তির আবেদনের সুযোগ করে দেয়ার দাবিতে গতকাল সোমবার সকালে ফেনী সরকারি কমার্শিয়াল ইনিস্টিটিউটের ছাত্রছাত্রীরা ইনস্টিউট ক্যাম্পাসে মানববন্ধন শেষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলরের বরাবর স্বারকরিপি পাঠিয়েছে।

ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, ফেনীসহ দেশের ১৬টি সরকারি কমার্শিয়াল ইনিষ্টিটিউট থেকে এ বছর প্রায় ২০ হাজার ছাত্রছাত্রী এইচএসসি সমমানের ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ পরীক্ষায় পাস করেছে। তার মধ্যে ফেনী সরকারী কর্মাশিয়াল ইনস্টিটিউট থেকে এ বছর পাস করেছে ৪৩৩ জন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স কোর্সে ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন করতে বলা হয়েছে। সরকারী কমাশিয়াল ইনস্টিটিউট থেকে পাশ করা ছাত্রছাত্রীরা তাদের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনলাইনে অনার্সে ভর্তির আবেদন করলে ফেইলড অথবা কলা অনুষদের বাংলা বা ইংরেজী বিষয় ভর্তির আবেদন রিসিভ হচ্ছে , যা তাদের প্রত্যাশিত বা কাম্য নয়। চলমান সমস্যার সুযোগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন কর্মচারী ছাত্রছাত্রীদের ঢাকায় গিয়ে তাদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে যোগাযোগ করে আবেদন করার জন্য উৎসাহিত করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আর্থিকভাবে স্বচ্ছল অভিভাকের সন্তানরা ঢাকা গিয়ে তাদের পছন্দনীয় বিষয়ে ভর্তির আবেদন করতে সমর্থ হলেও নিম্ন ও মধ্যম আয়ের অভিভাবকদের সন্তানরা ঢাকা গিয়ে ভর্তির আবেদন করতে পারছে না। তাদের সন্তানদের ভবিষ্যতের লেখাপড়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছে। ফেনী সরকারি কমার্শিয়াল ইনস্টিউটের অধ্যক্ষ মো. জসিম উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ছাত্রছাত্রীরা এ বিষয়ে অভিযোগ করলে তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ্ও ঢাকা শিক্ষা বোডে যোগাযোগ করেছেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কমিটির প্রধান সফট্ওয়ার ক্রুটির কথা স্বীকার করে তা নিরসনের আশ্বাস দিলেও আজও সমস্যার সমাধান হয়নি। আবেদন জমা দেয়ার শেষ সময় মাত্র ৩ দিন রয়েছে। অভিভাবকরা ঘটনাটি ভর্তি জালিয়াতি বলে অভিযোগ করেছেন। সরকারি কমাশিয়াল ইনস্টিটিউট থেকে এ বছর পাস করা ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী ভর্তির আবেদনের ডাটাবেইজ আপডেটের মাধ্যমে ২০ হাজার ছাত্র-ছাত্রীর অনার্সে ভর্তির আবেদন করার সুযোগ করাসহ আবেদন পত্র জমা দেয়ার সময় বাড়ানোর জন্য ভাইস চ্যান্সেলরের হস্তক্ষেপ কমানা করছে ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত