নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ৯ নভেম্বর ২০১৯, ২৪ কার্তিক ১৪২৬, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১
সাতক্ষীরায় বিলুপ্ত প্রায় জাতীয় শাপলা ফুল
কলারোয়া (সাতক্ষীরা) থেকে জুলফিকার আলী
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার বিভিন্ন খাল-বিলে বর্ষা মৌসুমে ফোটে বিভিন্ন প্রজাতির শাপলা। এর মধ্যে নয়নাভিরাম মনোমুগ্ধকর লাল শাপলার প্রতি আকর্ষণ সব চেয়ে বেশী। বর্ষা মৌসুমের শুরুতে এ ফুল ফোটা শুরু হয়ে প্রায় ছয় মাস পর্যন্ত বিল-ঝিল জলাশয় ও নিচু জমিতে প্রাকৃতিকভাবেই জন্ম নেয় নানা প্রজাতির শাপলা। এটি একটি গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ। আবহমান কাল থেকে শাপলা মানুষের খাদ্য তালিকায় সবজি হিসেবে অন্তর্ভূক্ত ছিল। বাসাইলের লক্ষীখোলার বিল, বেড়ির বিল, কুশোডাঙ্গার বিল, ছলিমপুরের বিল, রায়টার বিল এ অঞ্চলের স্বল্প আয়ের মানুষেরা এক সময় শাপলা বিক্রি করেই জিবীকা নির্বাহ করতো বলে শোনা যায়। সাদা ফুল বিশিষ্ট শাপলা সবজি হিসেবে ও লাল রঙ্গের শাপলা ঔষধি গুন সমৃদ্ধ। ছোটদের কাছে শাপলা ফুল অনন্য সৌন্দর্যের একটি প্রিয় খেলনা। বর্ষার শুরুতে শাপলার জন্ম হলেও হেমন্তের শিশির ভেজা রোদ মাখা সকালের জলাশয়ে চোখ পড়লে রং-বেরঙের শাপলার বাহারী রূপ দেখে চোখ জুড়িয়ে যেত। এ যেন সাজানো ফুল বাগানের মধ্যে শ্রষ্টার অপরূপ সৃষ্টি প্রাকৃতিক সৌন্দযের্র লীলাভূমি। এমন দৃশ্য চোখে না দেখলে কারও বোধগম্য হবে না। বর্ষা মৌসুমে নৌকা নিয়ে সৌন্দর্য মন্ডিত এ দৃশ্য অবলোকন করতে ছুঁটে আসতেন প্রকৃতি প্রেমীরা। আবার নিম্ন আয়ের লোকেরা শাপলা বিক্রি করে জীবিকাও নির্বাহ করতো। স্থানীয়ভাবে সহজলভ্য হওয়ায় কারণে এলাকার লোকজন শাপলা তুলে খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করে। এছাড়া এসময় সবজির দর চড়া থাকার কারণে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর চাহিদা মেটাতো। শহরের এক শ্রেণীর মানুষের কাছে মৌসুমি এ সবজির একটি প্রিয় খাদ্য। বর্তমান সভ্যতায় বাড়তি জনসংখ্যার চাপে আবাদী জমি ভরাট করে বাড়ি, পুকুর, রাস্তাঘাট, মাছের ঘের বানানোর ফলে বিলের পরিমান যেমন কমছে, তেমনি শাপলা জন্মানোর জায়গাও কমে আসছে। এছাড়া প্রভাবশালী, জবর-দখলকারী শ্রেণীর লোক খাল-বিলের জায়গা দখল করে নিজেদের আয়ত্তে নেওয়ার কারণে অনেক বিলের জায়গাই সংকুচিত হয়ে পড়েছে। তাছাড়া জমিতে উচ্চ ফলনশীল জাতের চাষাবাদের কারণে অধিক মাত্রায় কীটনাশক প্রয়োগ, জলবায়ু পরিবর্তন, খাল-বিল ও জলাশয় ভরাটের কারনে উপজেলার বিভিন্ন বিলাঞ্চল থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে নানা জাতের শাপলা। এখন খাল-বিল ও জলাশয় থেকে প্রায় হারিয়েই যাচ্ছে শাপলা। এক সময় সৌখিন মানুষেরা সৌন্দযের্র জন্য নিজের পুকুরে শাপলা চাষ করতো। এখন ওই সকল পুকুরে কার্প জাতীয় মাছ যেমন- সিলভার কার্প, রোবোকার্প, গ্রাস কার্প মাছ চাষের ফলে শাপলার বংশ বিস্তার সমূলে বিনাশ হয়ে যাচ্ছে। সাদা ফুল বিশিষ্ট শাপলা সবজি হিসেবে ও লাল রংয়ের শাপলা ঔষধি কাজে ব্যবহৃত হয়। শাপলা খুব পুষ্টি সমৃদ্ধ সবজি। সাধারণ শাক-শবজির চেয়ে এর পুষ্টিগুন অনেক বেশি। শাপলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। শাপলায় ক্যালসিয়ামের পরিমাণ আলুর চেয়ে সাতগুন বেশি। বিশেষজ্ঞদের মতে, শাপলা চুলকানী ও রক্ত আমাশয়ের জন্য বেশ উপকারী। তাছাড়া ডায়াবেটিস, বুক জ্বালা, লিভার, ইউরিনের সমস্যার সমাধানসহ নারীদের মাসিক নিয়ন্ত্রনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ঐতিহাসিক কাল থেকেই শাপলার ফল (ঢ্যাপ) দিয়ে চমৎকার সুস্বাদু খৈ ভাজা হতো। যেটি গ্রামগঞ্জে ঢ্যাপের খৈ হিসেবে পরিচিত। মাটির নিচের মূল অংশকে (রাইজোম) আঞ্চলিক ভাষায় শালুক বলে। নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে বিল-ঝিল-হাওড়-বাঁওড়-পুকুরের পানি যখন কমে যায় তখন শালুক তুলে খাওয়া হত, তা খেতেও বেশ সুস্বাদু। তবে আমাশয়ের জন্য এটি খুবই উপকারী। কলারোয়া উপজেলার পিছলাপোল গ্রামের আ. কাদের জানান, কয়েক বছর আগেও বর্ষা কাল থেকে শরৎকালের শেষ ভাগ পর্যন্ত বিল এলাকায় মাইলের পর মাইল মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকত নয়নাভিরাম নানা প্রজাতির শাপলা।

এখন আর এমন দৃশ্য চোখে পড়ে না। অনেকের কাছে শাপলা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা সৃষ্টিকর্তার অপার সৃষ্টি মনে করলেও বিল ঘেষা জমি মালিকদের কাছে এটা নিতান্তই বিরক্তিকর বিষয় বলে দাবী করেন কৃষক আলমগীর হোসেন আবু বকর ও বাবলুর রহমান। তারা বলেন, বোরো মৌসুমের আগে জমিতে চাষাবাদের জন্য এই শাপলার কারণে জমি পরিস্কার করতে তাদের গুনতে হয় অতিরিক্ত অর্থ। ভাল চাষ না করতে পারলে জমিতে ফলনও কম পাওয়া যায়। কলারোয়া উপজেলা কৃষি কর্মকতারা জানান, বর্ষা শেষ না হতেই খাল-বিল ও আবদ্ধ জলাশয়গুলো শুকিয়ে যাওয়ার ফলে শাপলা জন্মানোর ক্ষেত্র বিনষ্ট হয়ে পড়েছে। এর ফলে প্রাকৃতিক এ জাতীয় ফুলটি প্রায় বিলুপ্তির পথে। সরকারি উদ্যোগে এর অনুকূল পরিবেশ তৈরি প্রয়োজন।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৪
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩২২৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.