নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১
কৃষক লীগের পদপ্রত্যাশীদের শেষ মুহূর্তে লবিং-তদবির
কৃষক লীগের সম্মেলনে আলোচনায় হেবিওয়েট পদপ্রত্যাশী
সফিকুল ইসলাম
দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। একইসাথে দলীয়প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আওয়ামী লীগের কয়েকটি সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এরমধ্যে আগামী ৬ নভেম্বর বুধবার সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ কৃষক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এ কারণে সম্মেলনকে সামনে রেখে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়

এবং আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে লেগেছে উৎসবের আমেজ। কৃষকলীগ ছাড়াও আওয়ামী লীগের সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর সম্মেলনকে ঘিরেও মহা উৎসবে রূপ নিয়েছে। আনন্দ আর উৎসবের মধ্য দিয়েও পদ প্রত্যাশিরা লবিং-তদবির করছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের কাছে। তবে এবার ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের আনাগোনা বেশি দেখা যাচ্ছে। তাদের মধ্যে রয়েছে অনেক হেভিওয়েট পদপ্রার্থীও।

সূত্রমতে, গত ১৪ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় বাংলাদেশ কৃষকলীগের সম্মেলন ৬ নভেম্বর ঠিক করা হয়। সেই সকালের ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রথম অধিবেশন এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে দ্বিতীয় অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে।

আসন্ন সম্মেলনে কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের দুই শীর্ষ পদে আলোচনায় রয়েছেন অনেকে। তার মধ্যে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি খান আলতাফ হোসেন ভূলু, সহ সভাপতি ছবি বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট খন্দকার শামসুল হক রেজা, সহ সভাপতি শরীফ আশরাফ আলী, বদিউজ্জামান বাদশা, আকবর আলী, শেখ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ড. হারুনুর রশিদ হাওলাদার। বর্তমান সভাপতি মোতাহের হোসেন মোল্লা আবারও একই আসনে বসতে চান। সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য নেতাকর্মীদের মাঝে আলোচনায় রয়েছেন-সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ সমীর চন্দ, সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ সাখাওয়াত হোসেন সুইট, আতিকুল হক আতিক। এছাড়া সংগঠনের আরেক সাংগঠনিক সম্পাদক বিশ্বনাথ সরকার বিটু, আবুল হোসেন, আসাদুজ্জামান বিপ্লব পদ প্রত্যাশা করছেন।

সূত্র মতে, কৃষক লীগে কৃষি পেশার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির চেয়ে অন্য পেশা থেকে আসা ব্যক্তির সংখ্যাই বেশি। কোনোকালে কৃষির সাথে সংযুক্ত ছিলেন না, এমন ব্যক্তিদেরও আনাগোনা রয়েছে এই সংগঠনে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে অর্ধশতাধিক আইনজীবীও রয়েছেন বলে অভিযোগ নেতাকর্মীদের। আইনজীবীদের কৃষক লীগে পদ দেয়ার অভিযোগ সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খন্দকার শামসুল হক রেজার বিরুদ্ধে।

কৃষক লীগের নেতৃবৃন্দ সমর্থকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, শীর্ষ দুই পদের যে কোনো একটি পদে বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ সমীর চন্দ মনোনীত হলে সংগঠন সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী ও গতিশীল এবং সংগঠনের ভিতরের যে অনিয়ম রয়েছে তা দূর হবে। তবে সমীর চন্দ্র বলেন, কৃষকলীগের কনফারেন্সে আগামী দিনের নেতৃত্বে কৃষকের জীবন-যাত্রার উপরে জ্ঞান আছে, ধারণা আছে এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে সৎ ও দক্ষ সংগঠক নেতৃত্ব আমরা চাই। আমাদের সাংগঠনিক নেত্রী, আওয়ামী লীগের নেত্রী শেখ হাসিনার উপর আমার সর্ম্পূন আস্থা আছে। বরাবরের মতোই এবারও কৃষকের সুখ দুঃখের সাথী এমন সৎ বিচক্ষণ, কর্মক্ষণ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের মাঝ থেকে নেতৃত্ব বাছাই করবেন।

সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের ১৯ জুলাই কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন হয়েছিল। বর্তমান কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে প্রায় চার বছর আগেই। সম্মেলনের পর জেলা সম্মেলন করার কার্যক্রম শুরু করলেও এখন বেশ কয়েকটি জেলা সম্মেলন হয়নি। আওয়ামী লীগের সভাপতির স্বাক্ষরিত ১১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে সেই কমিটি কত সদস্য বিশিষ্ট তা জানেন না সংগঠনের সিনিয়র নেতারা। সংগঠনটির সহ-সভাপতি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদকসহ বিভিন্ন পদে অপরিচিত একাধিক ব্যাক্তিকে হঠাৎ দেখে বিস্মিত হয় সংগঠনটির সিনিয়র নেতারা। ওয়াকিং কমিটির অনুমতি না নিয়ে গুরুত্বপূর্ন পদে দায়িত্ববানদের কাছে লোককে পদে বসানো অভিযোগ ছিল। বর্তমান কমিটি দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি জেলা সম্মেলন হয় নাই। সেই জেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে-চট্টগ্রাম বিভাগের কুমিল্লা জেলার (উত্তর), নোয়াখালী, খাগড়াছড়ি, কঙ্বাজার, চাঁদপুর। খুলনা বিভাগের কুষ্টিয়া জেলা। বরিশাল বিভাগের বরিশাল জেলা, পিরোজপুর ও পটুয়াখালী জেলা সম্মেলন হয়নি। রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রাম জেলা, দিনাজপুর জেলা, রংপুর জেলা ও সিরাজগঞ্জ জেলা সম্মেলন হয়নি। সিলেটের সুনামগঞ্জের জেলা সম্মেলন হয়নি। ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোণা ও ময়মনসিংহ জেলা সম্মেলন হয়নি। এই জেলায় বছরখানেকের মধ্যে একাধিক কমিটি পরিবর্তনের অভিযোগ রয়েছে। তবে দেশের বাহিরে কমিটি দিতে খুব আগ্রহী ছিলেন বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। এরই মধ্যে সৌদি আরব, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা ও কানাডা কমিটি দেয়া হয়েছে বলে জানা যায়।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৭
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৪সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৮২৮.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.