নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৩ অক্টোবর ২০১৭, ২৮ আশ্বিন ১৪২৪, ২২ মহররম ১৪৩৯
জাতিগত নিধনযজ্ঞ চাপা দেয়ার নির্লজ্জ অপপ্রয়াস
রোহিঙ্গাদের নয়, আরসার হামলার শিকারদের পুনর্বাসনের নির্দেশ সু চি'র
জনতা ডেস্ক
মায়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেতা অং সান সু চি সহিংসতাকবলিত রাখাইন রাজ্যে 'সন্ত্রাসী হামলার শিকার' হওয়া মানুষের পুনর্বাসনের পদক্ষেপ দ্রুত কার্যকর করতে তাগাদা দিয়েছেন। তবে সেখানে সংঘটিত জাতিগত নিধন ও মানবতাবিরোধী অপরাধের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা ও রাখাইনের রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের বিষয়ে কোনো কথা বলেননি। গত বুধবার নেপিদোতে দেশটির জাতীয় সমন্বয় কমিটির সভায় সু চি রাখাইনের 'সন্ত্রাসী হামলার শিকার' হওয়া এলাকাগুলোতে মানবিক ত্রাণ পৌঁছানো, পুনর্বাসন ও উন্নয়নে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কার্যকর ও দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এই সন্ত্রাস আরসার সৃষ্টি করা বলে দাবি করে মায়ানমারের সরকার। সেই সরকারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা সু চি'র অবস্থানও অভিন্ন।

মায়ানমারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা সু চি'র অবস্থান মায়ানমারের রাষ্ট্রীয় অবস্থান থেকে একটুও আলাদা নয়। রাখাইন পরিস্থিতিকে রোহিঙ্গা নিপীড়ন নয়, জাতিগত সংঘাত আখ্যা দিয়ে আসছেন তিনি। রাখাইন পরিস্থিতির নেপথ্যে আরাকান স্যালভেশন আর্মির সন্ত্রাসকেই বড় করে দেখেছেন। সু চি তার ১৯ সেপ্টেম্বরের বক্তব্যে ৩০টি পুলিশ চেকপোস্ট আর ১টি রেজিমেন্টাল হেড কোয়ার্টারে সন্ত্রাসী হামলার জন্য রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি এবং এর সমর্থকদের দায়ী করে আইনের আওতায় নেয়ার হুমকি দেন। সেই বক্তব্যের সমালোচনায় অ্যামনেস্টি বলেছিল, বালুতে মুখ গুঁজে আছেন তিনি। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তার বিরুদ্ধে এনেছিল সেনাবাহিনীর দমন-পীড়ন আড়ালের অভিযোগ।

নতুন করে আবারও তিনি রোহিঙ্গা নিপীড়ন আড়াল করে আরসার সন্ত্রাসী হামলাকে বড় করে দেখেছেন। মায়ানমারের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার বরাত দিয়ে চীনা সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া গতকাল বৃহস্পতিবার জানায়, গত বুধবার দেশটির জাতীয় সমন্বয় ও শান্তি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত সমন্বয় সভায় সু চি রাখাইনের যেসব অঞ্চলে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে সেই অঞ্চলগুলোতে সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পুনর্বাসন, মানবিক ত্রাণ ও উন্নয়নের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নিতে তাগাদা দিয়েছেন।

বাংলাদেশসহ প্রতিবেশী ৫টি দেশের রাষ্ট্রদূতদের সরকারি তত্ত্বাবধানে রাখাইন পরিদর্শনে নিয়ে যাওয়ার ১ দিন পর এই সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাখাইন পরিদর্শনের সময় নেতৃত্ব দিয়েছিলেন রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা কার্যালয়ের মন্ত্রী টিন্ট সোয়ে। রাখাইন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ইউ নিয়াই পু সমন্বয় সভায় জানান, সরকার ৩টি ক্ষেত্রে পুনর্বাসনে গুরুত্ব দিচ্ছে। সেগুলো হচ্ছে- তালিকা তৈরি, শরণার্থীদের জন্য খাবার সরবরাহ এবং যোগাযোগ ও পরিবহণ ব্যবস্থার উন্নতি।

সু চি এবং মায়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে ২৫ আগস্টে নিরাপত্তা চৌকিতে আরসার হামলাকে রাখাইন সংঘাতের জন্য দায়ী করা হলেও জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের গত বুধবারের এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে ২৫ তারিখের আগে থেকেই সেখানে জাতিগত নিধনের পরিকল্পনা নেয়া হয়। জাতিসংঘের ঐ প্রতিবেদন অনুযায়ী রাখাইন থেকে সব রোহিঙ্গাকে তাড়িয়ে দিতে এবং তারা যেন আর কখনও রাখাইনে ফিরতে না পারে তা নিশ্চিত করতে পরিকল্পিতভাবে সংগঠিত ও কাঠামোবদ্ধ কায়দায় সেনা প্রচারণা ও অভিযান চালিয়েছে মায়ানমার।

২৫ আগস্ট রাখাইনে সামরিক অভিযান শুরুর পর বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে ৫ লাখ ২০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা। মাঝখানে কয়েকদিন রোহিঙ্গাদের ঢল কিছুমাত্রায় কমে আসলেও চলতি সপ্তাহে তা আবার বেড়েছে। গত সোমবার বাংলাদেশে প্রায় ১১ হাজার রোহিঙ্গা প্রবেশ করেছে। জাতিসংঘ মায়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযানকে জাতিগত নিধনযজ্ঞের প্রামাণ্য উদাহরণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। মায়ানমার সরকার এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। তাদের দাবি, মুসলিম সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী ক্লিয়ারেন্স অভিযান পরিচালনা করছে। রোহিঙ্গা মুসলিমরা নিজেদের গ্রামগুলো নিজেরাই পোড়াচ্ছে এবং স্থানীয় রাখাইন ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালাচ্ছে।

১৯ সেপ্টেম্বর দেয়া ভাষণে সু চি দাবি করেছিলেন, রাখাইনে সেনা অভিযান শেষ হয়ে গেছে। সহিংসতায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বললেও রোহিঙ্গাদের নিয়ে কিছু বলেননি। শুধু জানিয়েছিলেন, কেন বাংলাদেশে মুসলমানরা পালিয়ে যাচ্ছে তা অনুসন্ধান করতে হবে। ভাষণে সু চি দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ওঠা জাতিগত নিধনযজ্ঞের অভিযোগ নিয়ে কোনো কথা বলেননি।

শান্তিতে নোবেল জয়ী সু চি সামরিক অভিযানের নৃশংসতা নিয়ে নীরব থাকায় আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে পড়েন। অবশেষে ১৯ সেপ্টেম্বর তিনি রাখাইনে সহিংসতা নিয়ে ভাষণ দেন। যদিও ভাষণে সহিংসতার জন্য মুসলিমদের দায়ী করে সামরিক বাহিনীর পক্ষেই অবস্থান নেন এবং সেনা অভিযান সমাপ্ত হয়ে গেছে বলে দাবি করেন সু চি। কিন্তু অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহেও ১ দিনে প্রায় ১১ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

এর মধ্যে অঙ্ফোর্ড ইউনিভার্সিটি তাদের ক্যাম্পাসে টানানো সু চি'র প্রতিকৃতি নামিয়ে ফেলে। বেশ কয়েকটি সংগঠন সু চি'কে দেয়া সম্মাননা প্রত্যাহার করেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ পশ্চিমা দেশগুলো মায়ানমারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারির হুমকি দিয়েছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৩
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৮০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.