নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১২ অক্টোবর ২০১৮, ২৭ আশ্বিন ১৪২৫, ১ সফর ১৪৪০
ইজারা নিলেও মাঝিদের স্বেচ্ছাশ্রমে নদীতে ঘাটলা নির্মাণ
ঝালকাঠি পৌর খেয়াঘাট
বিশেষ প্রতিনিধি
ঝালকাঠি পৌর খেয়াঘাট থেকে পোনাবালিয়া ইউনিয়নের নয়ারাস্থা মধিপুরের ট্রলার ঘাট না থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যাত্রীসহ ট্রলার মাঝিদের। তাই জোড়াতালি দিয়ে মাঝিদের নিজ খরচে ও স্বেচ্ছাশ্রমে প্রায়ই কাঠের ঘাট তৈরি করতে হচ্ছে। দীর্ঘদিনেও এখানে পাকা ট্রলার ঘাট নির্মাণ না করায় প্রতিদিন শত শত যাত্রীদের ট্রলারে উঠতে নামতে হয়রানি হতে হচ্ছে। কারণ নদীর পানি জোয়ার ভাটায় উঠানামা করায় যাত্রীদের কাদা পানি পেরিয়ে উঠানামা করতে হয়। প্রতি বছর প্রায় দেড় লাখ টাকার বিনিময়ে ইজারা দেয়া হলেও সুগন্ধা নদীর দুপাড়েই নির্মাণ করা হয়নি কোনো পাকা ঘাট বা সিঁড়ি। তাই ইজারাদারসহ সাধারণ যাত্রীদের দাবি দ্রুত সুগন্ধা নদীর দুই পাড়ে পাকা ঘাট বা সিঁড়ি নির্মাণ করা হোক।

এ বিষয়ে ঘাটের ইজারাদার সাইদুল ব্যাপারী জানান, দেশের উন্নয়নে এত কাজ করা হয় শুনছি, কিন্তু আমাদের পৌর খেয়া ঘাটের যাত্রী দুর্ভোগ লাঘবে এখানে কোনো পাকা ঘাট নির্মাণ করা হয়নি। এ জন্য আমরা এলাকার শিল্পমন্ত্রী, পৌর মেয়র, পোনাবালিয়া ইউপি চেয়ারম্যানসহ সবার শরণাপন্ন হলেও কোনো সুফল পাইনি। ইজরাদার আরো জানান, পৌর সভা থেকে প্রতি বছর এ ঘাট মোট প্রায় ২ লাখ টাকায় ডাক নেই। কিন্তু আজ পর্যন্ত নদীর দু'পাড়ে কোনো পাকা স্থায়ী ট্রলার ঘাট নির্মাণ না করায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। তাই বাধ্য হয়ে আমরা নিজেরাই শ্রম ও অর্থ দিয়ে কাঠের তৈরি ঘাট নির্মাণ করছি। এ ঘাট দিয়ে বিশেষ করে শিশু ও বৃদ্ধদের উঠানামা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। এ ঘাটের মাঝি মো. বেলায়েত জানান, ইতিপূর্বে জেলা পরিষদ থেকে একটি ঘটনা নির্মাণ করা হলেও তা মাটির নিচে দেবে গেছে। তাই আমরা এ ঘাটের ২৪ জন মাঝি প্রতিবছরের ন্যায় এবারো নিজেরাই শ্রম ও অর্থ দিয়ে এভাবে ঘাটলা নির্মাণ করে দায়সারাভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। গত সোমবার নদীর ওপাড়ে গিয়ে দেখা যায় মাঝিরা নিজেরাই স্বেচ্ছাশ্রমে নদীতে ঘাটলা নির্মাণ করছে। এ বিষয়ে ঝালকাঠি পৌর মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার জানান, এই ঘটলা দুটি নির্মাণের বিষয়ে আমার পরিকল্পনা আছে। বিশেষ করে যাত্রীদের দুর্ভোগ লাঘবের বিষয়টি মাথায় রেখেই ইতোমধ্যেই ঘাটলার প্রাক্কলন তৈরি করা হচ্ছে। যত দ্রুত সম্ভব এই প্রক্রিয়া শেষ হলেই দু'পাড়ে ঘাটলা নির্মাণ করা হবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১১
ফজর৫:১০
যোহর১১:৫২
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:৩০সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৪৬১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.