নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৩০ ভাদ্র ১৪২৪, ২২ জিলহজ ১৪৩৮
নার্সের ডাক্তারিপনায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা শাহনাজ পারভীন
নরসিংদী প্রতিনিধি
নার্সের অবাঞ্ছিত ডাক্তারীপনার শিকার হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে শাহনাজ পারভীন (৩৫) নামে এক গর্ভবতী মহিলা। গত রোববার মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েএই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটি ঘটেছে। এই অঘটনটি ঘটিয়েছেন একই স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে নার্স মার্জিয়া বেগম ও পারভীন আক্তার। গর্ভবতী মহিলা এখন বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে রয়েছে। তার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন বলে জানা গেছে। জানা গেছে, মনোহরদী উপজেলার শুকুন্দী ইউনিয়নের দিঘাকান্দী গ্রামের দিনমুজুর আবুল কালামের স্ত্রী শাহনাজ পারভীন ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্ব্বাবস্থায় পেটে ব্যথা অনুভব করলে গত রোববার মনোহরদী স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েডাক্তার দেখাতে যায়। সেখানে তাদের পরিচিত নার্স পারভীন আক্তার কোনো ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই তাকে লেবার রুমে নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে মহিলার স্বামী কালামকে জানায় যে, মহিলার গর্ভের শিশুটি মারা গেছে। এ কথা বলে নার্স পারভীন ঢাকায় চলে যায়। দায়িত্ব দিয়ে যায় তার সতীর্থ নার্স মার্জিয়া আক্তারকে। নার্স মার্জিয়া আক্তারও কোনো ডাক্তারের আশ্রয় না নিয়ে নিজেই হাতুড়ে ডাক্তারীপনা শুরু করে দেয়। সে শাহনাজ পারভীনকে লেবার রুমে নিয়ে প্রথমে ফোরসেফ ও পরে হাত দিয়ে গর্ভের বাচ্চাটিকে টেনে ছিড়ে অর্ধেক বাইরে বের করে আনে। এ অবস্থায় শাহনাজ পারভীনের ব্যাপক রক্তপাত হতে থাকলে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এই অবস্থায় নার্স মার্জিয়া, শাহনাজ পারভীনের স্বামী কালামকে জানায় যে, শাহনাজের অবস্থা ভালো নয়, তাকে ঢাকায় নিয়ে যান। এ কথা বলে সে হাসপাতাল থেকে দ্রুত সরে পড়ে। এই অবস্থায় কালাম তার স্ত্রী শাহনাজকে প্রথমে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা চালায়। কিন্তু এখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসা করার পরও তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে দুটি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শাহনাজের গর্ভ থেকে শিশুটির বাকি অর্ধেক অপসারণ করা হয়। এরপরও তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণের জন্য আইসিইউতে নিয়ে রাখা হয়। তার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত নার্স মার্জিয়া বেগম সাংবাদিকদের নিকট ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. শফীকুল আলম বলেন, রোগীর স্বামী মোবাইল ফোনে ঘটনা সম্পর্কে তাকে অবহিত করেছেন। লিখিত অভিযোগ দিলে নার্স দ্বয়ের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১১
ফজর৫:১০
যোহর১১:৫২
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:৩০সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৪২৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.