নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৩০ ভাদ্র ১৪২৪, ২২ জিলহজ ১৪৩৮
বিদ্যালয়ের জমি দখল করে মাছ চাষ ভাঙনের ঝুঁকি
আমতলী প্রতিনিধি
বরগুনার তালতলী উপজেলার আলীরবন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি জোড়পূর্বক দখল করে প্রভাবশালী জহিরুল ইসলাম খান মাছ চাষ করছে। এতে ভাঙ্গন হুমকিতে পরেছে বিদ্যালয়ের ভবন। ভবনটি যেকোন মুহূর্তে ধসে পরার আশঙ্কা করছে বিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, ১৯৪২ সালে উপজেলার আলীর বন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়। ঐ বিদ্যালয়ে জমির পরিমাণ ১৩০ শতাংশ। এর মধ্যে ৫২ শতাংশ সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত এবং স্থানীয় আবদুর রশিদ খান ৭৮ শতাংশ জমি বিদ্যালয়ের নামে দান করেন। ঐ জমির ২৯ শতাংশে বিদ্যালয়ের ভবন ও খেলার মাঠ রয়েছে। ৭৮ শতাংশ বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশে এবং ২৩ শতাংশ বিদ্যালয়ের পেছনে। ২০০৭ সালে বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের ৭৮ শতাংশ জমিতে স্থানীয় প্রভাবশালী জহিরুল ইসলাম খাঁন জোরপূর্বক দখল করে ঘের কেটে মাছ চাষ শুরু করেন। ২০১২ সালে বিদ্যালয়ের পিছনের সরকারি জমিতে একটি পুকুর খনন করে তাতেও মাছ চাষ করছে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে বাঁধা দিলেও কোনো কাজে আসছে না। এতে বিদ্যালয়ের মূল ভবনের পশ্চিম পাশের পিলার ঘেরে ভেঙে যাচ্ছে। পেছনের অংশে পুকুর খনন করায় বিদ্যালয়ের পিছনের অংশ ভেঙে গেছে। এতে ভাঙন হুমকিতে পড়েছে বিদ্যালয়। ঘেরে পানি বেশি হওয়ায় শিশুরা খেলতে গিয়ে ঘের ও পুকুরে পড়ে যাওয়ার আতঙ্কে রয়েছে শিক্ষক ও অভিভাবকরা। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে কয়েকবার সালিস বৈঠক হয়েছে। দখলবাজ জহিরুল ইসলাম খান ঘেরে মাছ চাষ বন্ধ করে বিদ্যালয়ের জমি ফেরত দিচ্ছে না। ২০১৬ সালে তৎকালীন ইউএনও মোঃ ইসরাইল মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিদ্যালয়ের জমি পরিমাপ করে সীমানা পিলার দিয়ে দেয়। কিছুদিন পরে ওই সীমানা পিলার দখলবাজ জহিরুল ইসলাম খান উঠিয়ে ফেলে। বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, বিদ্যালয় ঘেষে মাছ চাষের জন্য ঘের করায় বিদ্যালয় ভাঙন হুমকিতে রয়েছে। বিদ্যালয়ের ভবনের পশ্চিম পাশের পিলার ঘেরের মধ্যে রয়েছে। ঘের ভেঙে বিদ্যালয় ছুঁয়ে ফেলেছে। ঘেরের অপর পাশে আমতলী-তালতলী সড়ক ভেঙে গেছে। বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী তনি্ন, আসমা ও চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী রাজিব, লাইজু জানান বিদ্যালয় সংলগ্ন ঘের গভীর হওয়ায় আমরা স্বাধীনমত খেলাধুলা করতে পারি না পড়ে যাওয়ার ভয়ে। তারা অনতিবিলম্বে বিদ্যালয়ের জমি দখলমুক্ত করে বিদ্যালয় রক্ষার দাবি জানান।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন মোবারক ডাকুয়া বলেন বিদ্যালয়ের ৭৮ শতাংশ জমি জহিরুল ইসলাম খান দখল করে মাছের ঘের করেছে। ঘের ভাঙনের ফলে যেকোনো সময় বিদ্যালয় ভবনের পিলার ধসে পড়তে পারে ভবনটি। বিদ্যালয়ের কক্ষে জীবনের ঝুকি নিয়ে ক্লাস করতে হয়। তিনি আরো বলেন, শিশু শিক্ষার্থীরা সাতার না জানায় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। দখলবাজ জহিরুল ইসলাম খান বিদ্যালয়ের জমি ছেড়ে দেয়ার কথা অস্বীকার এবং বিদ্যালয় ভাঙনের কথা স্বীকার করে বলেন, শুকনো মৌসুমে ভাঙন রোধে ঘেরের চারপাশে মাটি দেয়া হবে।

বিদ্যালয় ব্যবস্থাপানা কমিটির সভাপতি হাফিজুল হক শিকদার বলেন, জহিরুল ইসলাম খান জোরপূর্বক বিদ্যালয়ের জমি দখল করে মাছের ঘের করেছে। তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. হেমায়েত উদ্দিন বলেন, উপজেলা প্রকৌশলী ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে বিদ্যালয় পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৩
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৮৯০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.