নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৩০ ভাদ্র ১৪২৪, ২২ জিলহজ ১৪৩৮
পাড়াপাড়ের নামে যে যার মতো প্রভাব খাটিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা
রাণীনগর-আত্রাই সড়কে চলাচলের প্রধান ভরসা এখন বাঁশের ফারাশ
রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি
নওগাঁর রাণীনগরে সম্প্রতি বন্যায় নওগাঁ-রাণীনগর-আত্রাই আঞ্চলিক সড়কটি ভেঙে যাওয়ায় জেলা সদরের সাথে সরাসরি যোগাযোগসহ দুই উপজেলার এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার বসবাসরত প্রায় দুই লক্ষাধিক জনসাধারণের চলাচলের প্রধান ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে বাঁশের ফারাশ। উজান থেকে ধেয়ে আসা মধ্য আগস্টের বন্যার পানির প্রবল চাপে রাণীনগর-আত্রাই সড়কের গোনা ইউনিয়নের ঘোষগ্রাম নামক স্থান থেকে প্রেমতলি পর্যন্ত চার জায়গায় ভেঙে যাওয়ায় রাণীনগর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা মারাত্মকভাবে ভেঙে পড়ে। ঈদে ঘরমুখী মানুষগুলো যাওয়া-আসার জন্য চরম ভোগান্তির কবলে পড়তে হয়। ভাঙন কবলিত স্থানে ব্যক্তিগত উদ্যোগে চার জায়গায় বাঁশের ফারাশ স্থাপন করা হলেও সর্বসাধারণের কাছ থেকে ফারাশ পাড় হওয়ার নামে স্থানীয় কিছু উঠতি বয়সের ছেলেরা প্রতিদিন ঐ সড়কে চলাচলরত জনসাধারণের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। টাকা দিতে একটু গরমসি করলে ঐ চক্রের হাতে অনেক লোকজন লাঞ্ছিত হয়েছে এমনও অভিযোগ উঠেছে। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খানের হস্তক্ষেপে স্থানীয়রা কিছুটা রেহাই পেলেও দূর-দূরান্ত থেকে আসা-যাওয়া করে এমন লোকজন ঐ চক্রের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না। যে যার মতো প্রভাব খাটিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে টাকা।

জানা গেছে, সম্প্রতি স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় উত্তর জনপদের খাদ্য ভা-ার হিসেবে খ্যাত নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলা অন্যান্য উপজেলার চেয়ে বেশি ক্ষতি হয়। বন্যার কারণে নওগাঁর রাণীনগর-আত্রাই আঞ্চলিক সড়কটির বিশেষ করে ত্রিমোহনী হতে আত্রাই উপজেলার সদর পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার সড়ক নওগাঁর ছোট যুমনা নদীর পানি সেই সময় বিপদসীমার ৬৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার কারণে সড়কের অধিকাংশ জায়গায় মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠে। স্থানীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন, স্থানীয় চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসী একযোগে রাত দিন পরিশ্রম করে বেশ কয়েক জায়গায় ভাঙন রোধ করা গেলেও শেষ রক্ষা হয়নি রাণীনগর উপজেলার ঘোষগ্রাম থেকে প্রেমতলি পর্যন্ত সড়কের চার জায়গা। এসব জায়গায় ভেঙে যাওয়ার কারণে সরাসরি আত্রাই থেকে রাণীনগর হয়ে নওগাঁ জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিছিন্ন হয়ে পড়ে। ভাঙনের কারণে রাণীনগরে চলতি মৌসুমে রোপা-আমন ও আউশ জাতের ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়। কৃষকদের ক্ষতি পুশিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই কৃষি বিভাগ বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে আগাম জাতের সরিষা ও ভুট্টা বপনের পরামর্শ দিচ্ছে। ভাঙনের প্রায় ২৫ দিন অতিবাহিত হলেও বন্যার পানি কমতে থাকায় ক্ষত স্থানগুলো মেরামতের কোনো দৃশ্যমান পদক্ষেপ এখনো গ্রহণ করা হয়নি। তবে বালু ভরাটের জন্য ঢিমেতালে প্রস্ততি চলছে এমনটায় জানা গেলেও দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি চোখে পড়ছে না। বাঁশের ফারাশের উপর দিয়ে সরাসরি মাঝারি আকারের যানবাহন চলাচল করতে না পারাই পায়ে হেঁটেই চলছে এই সড়কের চলাচলকারী লোকজন। ফলে তাদের দুর্ভোগ দিন দিন বেড়েই চলছে। এছাড়াও চলাচলরত সাধারণ মানুষ ভাঙন কবলিত স্থানে ব্যক্তিগত উদ্যোগে চার জায়গায় বাঁশের ফারাশ স্থাপন করলেও নতুন করে ভোগান্তির মুখে পড়তে হচ্ছে সর্বসাধারণের। ঐ এলাকার উঠতি বয়সের ছেলেরা প্রতিদিন ঐ সড়কে চলাচলরত জনসাধারণের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। টাকা দিতে একটু গরমসি করলে ঐ চক্রের হাতে অনেক লোকজন লাঞ্ছিত হয়েছে এমনও অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর দাবি যত তারাতারি সম্ভব ভাঙনকবলিত স্থান মেরামত করে জনসাধারণের সুবিধার্থে উন্মুক্ত করে দেয়া হোক। নওগাঁ সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হামিদুল হক জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাঘবের লক্ষ্যে খুব দ্রুত রাণীনগর-আত্রাই সড়কের ভাঙনকবলিত স্থানে ইতোমধ্যেই বালু ভরাটের কাজ শুরু হয়েছে। ভরাটের কাজ শেষ হলে ইট দিয়ে এইচবিবি করে আপাতত এই আঞ্চলিক সড়কটি সরাসরি চলাচলের জন্য জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। আশা করছি আগামী সপ্তাহ খানিকের মধ্যেই এই সড়কের মেরামতের কাজ সম্পূর্ণ করা হবে। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে রাত দিন ২৪ ঘণ্টা কাজ চলছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৫
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৮০৫.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.