নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২ মহররম ১৪৪০
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে প্রতীকী অনশন নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখুন : প্রশাসনকে বিএনপি
স্টাফ রিপোর্টার
'এ সরকারের সময় শেষ, এখনই নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখুন' এমন মন্তব্য করে প্রশাসনের উদ্দেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, এ সরকারের সময় শেষ। এখনই নিরপেক্ষ ভূমিকা রাখুন, আপনারা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। তাই আপনাদের জনগণের সেবা করতে হবে। আপনারা আওয়ামী লীগের কর্মচারী নন। তাই সরকারের কথায় জনগণের ওপর নির্যাতন করবেন না, গ্রেফতার করবেন না। আপনারা জনগণের সেবক, জনগণের পক্ষে অবস্থান নিন। গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনের সামনে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত প্রতীকী অনশনে তিনি এসব কথা

বলেন তিনি। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে দুই ঘণ্টার পূর্বঘোষিত এই অনশন কর্মসূচি শেষ হয় দুপুর ১২টার কিছু পরে। রাজধানী ছাড়াও সারাদেশে একই ধরনের কর্মসূচি পালন করে দলটি।

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তিনি কারাগারে অসুস্থ, তাকে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি যেহেতু কারাগারে আছেন, তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা সরকারের দায়িত্ব। কিন্তু চিকিৎসক দল বারবার পরামর্শ দেয়ার পরও সরকার কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। তিনি বলেন, সরকার অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে। আমরা তার নিঃশর্ত মুক্তি চাই। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া দেশের গণতন্ত্র মুক্ত হবে না। তাই তাকে আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করতে হবে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, সরকার আবার ষড়যন্ত্র করছে ৫ জানুয়ারি মার্কা নির্বাচন করতে। কিন্তু আমরা বলতে চাই, বাংলাদেশে আর ৫ জানুয়ারি মার্কা কোনো ভোটারবিহীন নির্বাচন হতে দেবো না। তাই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে, সেনা মোতায়েন করতে হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, সরকার আতঙ্কিত হয়ে এখন বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবি মামলা দিচ্ছে। লাখ লাখ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করছে। কয়েক দিন আগে প্রেসক্লাবের সামনে আমাদের মানববন্ধন শেষে বিনা কারণে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে। এসব করছে সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে। সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, আজকে সব দল ঐক্যবদ্ধ। তারা সবাই গণতন্ত্রের মা খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি চায়। গোটা দেশ সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে ঐক্যবদ্ধ। তফসিলের আগেই সংসদ ভেঙে দিয়ে, সেনা মোতায়েন করে ইসি পুনর্গঠন করে এবং সরকারের পদত্যাগ করেই আগামী নির্বাচন হতে হবে।

দ?লের নেতাকর্মী?দের উ?দ্দেশ ক?রে বিএনপির স্থায়ী ক?মি?টির সদস্য ব্যা?রিস্টার মওদুদ আহমদ ব?লে?ছেন, সময় মাত্র মাসখানেক। আ?ন্দোল?নের জন্য প্রস্তু?তি নি?তে হ?বে। এবার রাজপ?থে নে?মে অভীষ্ট ল?ক্ষ্যে পৌঁছানোর শেষ পর্যন্ত থাক?তে হ?বে। সরকার?কে বিদায় কর?তে হ?বে। তিনি ব?লে?ন, সময় আস?তে?ছে। সময় বে?শি দে?রি নাই। এমন কর্মসূ?চি দেয়া হ?বে যে কর্মসূ?চি?তে এই সরকা?রের নৌকা ভে?সে যা?বে।

আইনমন্ত্রীর বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে মওদুদ বলেন, সরকা?রের একজন মন্ত্রী ব?লে?ছেন- বিএন?পির আইনজীবীরা না?কি আইন জা?নেন না? আমার বক্তব্য হ?চ্ছে, উ?নি কি ভু?লে গে?ছেন যে, সং?বিধান হ?চ্ছে সবচেয়ে বড় আইন। তাই সং?বিধান বড়, সংবিধা?নের কথা বড় না?কি এক?জন মন্ত্রীর কথা বড়? তি?নি বলেন, সরকার চায় না খা?লেদা জিয়ার মু?ক্তি। আই?নি প্রক্রিয়ায় খা?লেদা জিয়ার মু?ক্তি হ?বে ব?লে অন্তত আমার ম?নে হয় না। তাই খা?লেদা জিয়ার মু?ক্তির একমাত্র পথ রাজপথ আন্দোলন। ইনশাল্লাহ আমরা খালেদা জিয়া?কে আ?ন্দোল?নের মাধ্য?মেই কারামুক্ত কর?বো।

কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান ব?লে?ন, এই দে?শের কো?টি কো?টি মানুষ খালেদা জিয়া?কে কারামুক্ত ক?রে আগামী?দি?নে দে?শের চতুর্থবারের ম?তো প্রধানমন্ত্রী নির্বা?চিত কর?বে।

দলটির আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, খা?লেদা জিয়ার নেতৃ?ত্বেই গণতা?ন্ত্রিক লড়াই চল?বে। সেই লড়াই?য়ের অংশ হিসেবে নির্বাচ?নে অংশ নে?বে বিএন?পি। বিজয়ী হ?য়ে খা?লেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী কর?ব।

এসময় নেতাকর্মী?দের ঐক্যবদ্ধভা?বে প্র?তি?রোধ গ?ড়ে তোলার আহ্বানও জানান বিএনপির এই শীর্ষনেতা।

প্রতীকী অনশনে এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস-চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, মো. শাজাহান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, আমান উল্লাহ আমান, আতাউর রহমান ঢালী, আবদুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, ইমরান সালেহ প্রিন্স, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী প্রমুখ।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৩
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩০২৯.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.