নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২ মহররম ১৪৪০
নড়াইলের মধুমতি নদীর ভাঙনে লণ্ডভণ্ড ৬ গ্রাম
অসহায় শত শত পরিবার
নড়াইল প্রতিনিধি
নড়াইলের মধুমতি নদীর ভাঙন। প্রতিদিনই বাড়িঘর, গাছপালা ফসলি জমি বিলীন হয়ে যাওয়ায় নদীর পাড়ে চলছে কান্না, আহাজারি দুঃখ আর ক্ষোভ। রাক্ষুসী মধুমতির থাবায় ল-ভ- হয়ে গেছে শত শত পরিবারের জীবন সংসার। সব কিছু হারিয়ে একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই খুঁজতে দিশেহারা হয়ে ছুটছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। তার পরেও চোখের সামনেই বিলীন হয়ে যায় বাপ-দাদার কবর। এসব ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে অনেকেই খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। আমাদের নড়াইল প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার মহিষাপাড়া, মঙ্গলহাটা, করফা, আতোষপাড়া, শিয়রবর ও ঘাঘা গ্রামে মধুমতি নদী ব্যাপকহারে ভাঙনের রূপ নিয়েছে। মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে শতাধিক বাড়ি-ঘর। অব্যাহত ভাঙন থাকায় প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ঝুঁকিতে রয়েছে আরও শতাধিক পরিবারের বাড়ি-ঘর। স্থানীয়রা জানান, গত দুই সপ্তাহের মধ্যে মধুমতিতে বিলীন হওয়া মহিষাপাড়া গ্রামের, রকিব মৃধা, ইকরাম মৃধা, জাকির মৃধা, দিলু মৃধা, সেলিম শিকদার মরিয়ম বেগম, চায়না বেগম, জাহানারা বেগম, কুদ্দুস শেখ, হিলু মুসাল্লী ও শিয়রবর গ্রামে হাসান মুন্সী, আতিয়ার, দেলোয়ার, নিলু, রাজ্জাক, আক্তার, আক্কাস, মিন্টু, ইকবলসহ অনেকেই বাড়ি রয়েছে। মধুমতি নদীর পাড় এলাকার ক্ষতিগ্রস্তরা। মলি্লকপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য বুলবুল শেখ নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, প্রায় ২০ বছর ধরে মহিষাপাড়া এলাকায় মধুমতি নদী ব্যাপক আকারে ভাঙন দেখা দিয়েছে। প্রধানন্ত্রীর কাছে আমাদের একটাই প্রত্যাশা তিনি যেন মধুমতি নদীর তীর রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

শিয়রবর গ্রামের রওশন শিকদার বলেন, আমাদের বাড়ি চার বার মধুমতী নদীতে বিলীন হয়েছে। এ বছর নদী যেভাবে ভাঙছে তাতে মনে হয় এবারও বাড়ি সরাতে হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) এমএম আরাফাত হোসেন, নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার সাহায্যের জন্য আবেদন করলে জেলা প্রশাসক বরাবর পাঠিয়ে সাহায্যের ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

নড়াইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহনেওয়াজ তালুকদার নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, আমরা শিয়রবর বাজার এলাকায় ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নিয়েছি। কিন্তু মহিষাপাড়া, মঙ্গলহাটা, করফা ও আতোষপাড়া এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ হাটবাজার না থাকায় কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২০
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৫সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩১৪০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.