নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১০ আগস্ট ২০১৯, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ৮ জিলহজ ১৪৪০
কলাপাড়ার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল ডেঙ্গুর ঘর
কলাপাড়া (পটুয়াখালী) থেকে এইচ, এম, হুমায়ুন কবির
পটুয়াখালীর কলাপাড়ার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল এখন ডেঙ্গুর ঘর। উপজেলা জুড়ে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান শুরু হলেও ডেঙ্গুর বংশ বিস্তারে গোটা হাসপাতাল যেন ডেঙ্গুর আবাসস্থল বানিয়ে রাখা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের পুরুষ, মহিলা ও শিশু ওয়ার্ডের বাথরুমে যেন কয়েক ইঞ্চি পানি জমে আছে। তাতে ভন ভন করছে মশা ও মাছি। শ্যাওলা ধরা বাথরুমের কোনে স্তূপ করে রাখা ময়লা। হাসপাতালের ইনডোর থেকে আউটডোর সর্বত্রই ময়লার স্তুপ। ড্রেন থেকে শুরু করে বাথরুমে তিন চার ইঞ্চি পরিমাণ ময়লা, দুর্গন্ধযুক্ত পানি জমে থাকায় মশা, মাছি ভোঁ ভোঁ করছে। হাসপাতালের বর্জ্য পুড়িয়ে ফেলার নিয়ম থাকলেও তা স্তূপ করে রাখা হচ্ছে বিক্রির জন্য। রোগীরা নাক চেপে বাথরুমে গেলেও এ ময়লা পরিস্কারে কোন উদ্যোগ নেই। এ চিত্র বাহিরের। আর ভিতরের চিত্র আরও ভয়াবহ। দুর্গন্ধে রোগীরা অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিতবাদ করলেই তাদের হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে পরিচ্ছন্ন কর্মী ও নার্সরা এ অভিযোগ রোগী ও তাদের স্বজনদের। কলাপাড়া পৌরসভার পক্ষ থেকে হাসপাতালের বর্জ্য পুড়িয়ে ফেলার জন্য চুলি্ল করে দেয়া হলেও সেই চুলি্লটিই যেন ঢেকে দিয়েছে ক্লিনিকাল বর্জ্যতে। এরই মধ্যে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত কুয়াকাটা ২০ শয্যা হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আরিফ হোসেন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে চিকিৎসার জন্য বরিশালে প্রেরণ করা হয়েছে।

কলাপাড়া হাসপাতালে ইতোপূর্বে আরও চারজন ডেঙ্গু রোগী শণাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে সর্বশেষ ভর্তিরত চাকামইয়ার আকলিমা বেগম চিকিৎসার জন্য বরিশালে গেছেন। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আরও পাঁচজন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে কলাপাড়ায় এখন পর্যন্ত মোট ১০ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত কলাপাড়ায় মোট ২০টি কীট পেয়েছেন। কীট সঙ্কটের কারণে আসন্ন কোরবানির ঈদে ঢাকা থেকে আসা কোন মানুষ ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হলে চিকিৎসা নিয়ে সঙ্কটের শঙ্কা প্রকাশ করছেন কলাপাড়া হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

সিপিপি'র কর্মী শহীদুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালে মানুষ চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য হওয়ার জন্য আসে হাসপাতালই যদি হয় ডেঙ্গুর ঘর তাহলে মানুষ কোথায় যাবে।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. জে এইচ খান লেলীন বলেন, জনবল সংকটের অজুহাত এ অব্যবস্থাপনাকে দিয়ে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তিঁনি বলেন, হাসপাতালে অতিরিক্ত রোগীর চাপের কারণে সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে পারছেন না। তারাও কাজ করছেন। তবে ক্লিনিক্যাল বর্জ্য পুড়িয়ে না ফেলে কেন স্তূপ করে রাখা হচ্ছে সে বিষয়ে কোন জবাব দেননি

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান ও পৌর মেয়র বিপুল চন্দ্র হাওলাদার বুধবার দুপুরে হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে এ দুরাবস্থা দেখে ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করেন। হাসপাতালের ভিতর ও বাইরের এ ময়লা আবর্জনা দ্রুত পরিষ্কার করার নির্দেশ প্রদান করেন। পৌরসভার পক্ষ থেকে ওষুধ ছিটানো ব্যবস্থা করা হয়। পৌরসভার পক্ষ থেকে ক্লিনিকাল বর্জ্য পুড়িয়ে ফেলার জন্য চুলি্ল করে দেয়া হলেও তাতে ময়লা না পুড়ে কেন স্তুপ করে রাখা হচ্ছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৪
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৮৯০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.