নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার ১০ আগস্ট ২০১৫, ২৬ শ্রাবণ ১৪২২, ২৪ শাওয়াল ১৪৩৬
পদ্মার ভাঙনে আড়াই হাজার ঘরবাড়ি বিলীন
জনতা ডেস্ক
পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে দৌলতপুরে ভাঙন বৃদ্ধি পেয়েছে। ইতিমধ্যেই এখানকার বেশ কয়েকটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ প্রায় দেড় হাজার ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, এক সপ্তাহে উপজেলার ফিলিপনগর, ইসলামপুর, আবেদের ঘাট, গোলাবাড়ি গ্রামের শতাধিক ঘর-বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর আগে বিলীন হয় নতুনচর, চিতলমারিয়া, ফকিরের বাড়ি, আহমেদ প্রামাণিকের বাগানবাড়ি ও নতুনপাড়া। হুমকির মুখে পড়েছে ফিলিপনগর মাধ্যমিক ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পিএম কলেজ, ইউনিয়ন পরিষদ ভবন, কমিউনিটি হাসপাতাল, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ অসংখ্য স্থাপনা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাফেলতির কারণে জনপদটি প্রতিনিয়ত বিলীন হলেও তা প্রতিরোধে সরকারিভাবে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। আবু আফফান, আবদুল হাকিম ও রাজু নামের ফিলিপনগর গ্রামের বাসিন্দা বলেন, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সংসদ সদস্য ফিলিপনগর স্কুলের কাছে নদী ভাঙন পরিদর্শনে এসেছিলেন। কিন্তু একদিনের ব্যবধানে (শুক্রবার) প্রায় ২৫ ফুট নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আর ৩০ ফুট বিলীন হলেই ফিলিপনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিও তলিয়ে যাবে। নাসির সরকার নামের এক কৃষক বলেন, পদ্মায় আমার ঘরবাড়ি তলিয়ে গেছে। আমি স্ত্রী-সন্তান নিয়ে অন্যের জায়গায় কোনো রকমের আশ্রয় নিয়েছি। ফিলিপনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষিকা শিরীন শারমিন বলেন, 'তার স্কুল থেকে পদ্মার পাড় থেকে মাত্র ১০ হাত দূরে। বিদ্যালয়টি রক্ষায় এলাকাবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে বেশ কিছু বালুর বস্তা ফেলা হয়েছে, যা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই কম।

ফিলিপনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নৈমুদ্দিন সেন্টু বলেন, পদ্মার অব্যাহত ভাঙনে কয়েকটি গ্রাম তলিয়ে গেছে, ৩০ হাজার হেক্টর জমি বিলীন হয়েছে।

তিনি বলেন, 'গত বছর ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা নদী বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেয় স্থানীয় সরকার। নদী রক্ষা বাঁধে চলতি বছর ২ হাজার ৩০০শ ফুট জিও ব্যাগ ফেলার কথা রয়েছে। এজন্য ৮৩ কোটি টাকার বরাদ্দও পাওয়া গেছে।' সরকারের ২২ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ মানসম্পন্ন করতে সেনাবাহিনীকে দিয়ে কাজ করানোর দাবি জানান ইউপি চেয়ারম্যান নৈমুদ্দিন সেন্টু।

দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীমুল হক পাভেল জানান, ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পদ্মায় তলিয়ে যাওয়ায় শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে ভেঙে না পড়ে সেজন্য অন্যত্র স্কুল পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক। দৌলতপুর আসনের সাংসদ রেজাউল হক চৌধুরী বলেন, ফিলিপনগরসহ কয়েকটি ইউনিয়নের পদ্মার আগ্রাসন থেকে রক্ষা করতে ৮২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে স্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নদী ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা পাবে কয়েক লাখ মানুষ।


Fatal error: Uncaught exception 'PDOException' with message 'SQLSTATE[HY000]: General error: 26 file is encrypted or is not a database' in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php:7 Stack trace: #0 /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php(7): PDO->query('Update newsHitC...') #1 /home/janata/public_html/lib/index.php(135): require('/home/janata/pu...') #2 /home/janata/public_html/web/details.php(10): lib->newsHitCount() #3 /home/janata/public_html/web/index.php(28): include('/home/janata/pu...') #4 /home/janata/public_html/index.php(15): include('/home/janata/pu...') #5 {main} thrown in /home/janata/public_html/lib/newsHitCount.php on line 7