নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ জুলাই ২০১৭, ৩ শ্রাবণ ১৪২৪, ২৩ শাওয়াল ১৪৩৮
ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাই ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগের ভরসা
স্টাফ রিপোর্টার
দেশের ব্যবসারত ব্যাংকগুলো বড় উদ্যোক্তাদের পেছনে না ছুটে ছোট ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দিচ্ছে। বড় উদ্যোক্তাদের ঋণ দিয়ে ব্যাংকগুলো বিপাকে রয়েছে। এসব উদ্যেক্তাদের বেশিরভাগ ঋণই বর্তমানে খেলাপি হয়ে পড়েছে। ফলে ক্ষুদ্র উদ্যেক্তাই ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগের মূল ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এছাড়া বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসছে।

সূত্র জানায়, ঋণের টাকা পরিশোধে এগিয়ে রয়েছেন ছোট উদ্যোক্তারা। একইভাবে সব ব্যাংকের ছোট অংকের ঋণের আদায়ও সন্তোষজনক। বিআইবিএমের গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, বড় অংকের ঋণের মধ্যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টাকা আদায় করতে পারেনি ব্যাংক। ফলে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের পাহাড় জমেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকও বড় গ্রাহকদের বদলে ছোট উদ্যোক্তাদের মধ্যে ঋণের প্রবাহ বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই এন্ড স্পেশাল প্রোগ্রাম বিভাগ থেকে জারি করা নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে কমপক্ষে ২০ শতাংশ ঋণ এসএমই খাতে বিতরণ করতে হবে। এছাড়া নির্দেশনায় মোট এসএমই ঋণের কমপক্ষে ৫০ শতাংশ কটেজ, মাইক্রো ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিতরণ করার কথা বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহা জানান, ছোট উদ্যোক্তাদের ঋণ দিয়ে ব্যাংকগুলোও স্বস্তি পাচ্ছে। এছাড়া ছোট, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা দেশের অর্থনীতিতে এখন বেশি অবদান রাখছে। ছোট উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে ঋণের টাকা আদায় বেশ সন্তোষজনক হলেও বড় ঋণ ব্যাংকের জন্য অনেক সময় বোঝা হয়ে দাঁড়ায়।

সূত্র আরো জানায়, ২০১৬ সালে এসএমই খাতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ১ লাখ ৪২ হাজার কোটি টাকার ঋণ দিয়েছে। আগের বছরের তুলনায় যা সাড়ে ২২ শতাংশ বেশি। ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বেশি কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয় বলে এ খাতে ঋণ বাড়ানোর ওপর বেশি জোর দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সারাদেশের ৫ লাখ ১৭ হাজার ২৯৯ প্রতিষ্ঠান এই ঋণ পেয়েছে।

একাধিক বেসরকারি ব্যাংকের এমডিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ দিয়ে একদিকে ব্যাংক স্বস্তি পায়, অন্যদিকে ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের সহযোগিতার মাধ্যমে ব্যাংক খাত অর্থনীতির মূল জায়গায় উন্নতি আনছে। বড় ব্যবসায়ীদের তুলনায় ছোট ব্যবসায়ীরা ঋণ খেলাপি কম হয়। ফলে ব্যাংকের ছোট ঋণের বিপরীতে প্রভিশনও কম রাখতে হয়। ছোট ছোট উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে ব্যাংকগুলোর আদায়ও ভালো হয়। এসব কারণে অধিকাংশ ব্যাংকই এখন ছোট উদ্যোক্তাদের দিকে বেশি নজর দিয়েছে।

এদিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ছোট উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়ছে অর্থনীতিতে। গত কয়েক বছর ধরে বড় শিল্প উদ্যোক্তারা যেখানে নানা সমস্যায় জর্জরিত ছিলেন, সেখানে ক্রমেই উজ্জীবিত হয়ে উঠছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা। ২০০৯ সালে ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণের ১৯ শতাংশ ছিল এসএমই ঋণ। ২০১৫ সাল শেষে মোট ঋণের ২৪ শতাংশ ঋণ গেছে এসএমই খাতে। এছাড়া ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মোট ঋণের অন্তত ২০ শতাংশ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএই) খাতে বিতরণের নির্দেশনা বহাল রাখার পাশাপাশি উৎপাদনশীল খাতে বেশি জোর দিতে বলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২৫
ফজর৫:০১
যোহর১১:৪৬
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩০
সূর্যোদয় - ৬:২০সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩১০১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.