নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ জুলাই ২০১৭, ৩ শ্রাবণ ১৪২৪, ২৩ শাওয়াল ১৪৩৮
রেলের পূর্বাঞ্চলে গার্ড নিয়োগে জটিলতা
ট্রেন পরিচালনা ঝুঁকিতে পড়ার আশঙ্কা
জনতা ডেস্ক
বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে গার্ড নিয়োগে জটিলতা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে রেলের পূর্বাঞ্চলে গার্ডের মঞ্জুরিকৃত ২৯৯ পদের মধ্যে ১২৪টি পদই শূন্য পড়ে আছে। এই সঙ্কট নিরসনে রেলওয়ে মহাপরিচালক সরাসরি গার্ড নিয়োগের নির্দেশনা দিলেও তাতে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে বিদ্যমান নিয়োগবিধি। কারণ রেলওয়ে রিক্রুটমেন্ট রুলস্-১৯৮৫ অনুযায়ী গার্ড পদে ৫০ শতাংশ লোকবল স্থায়ী ভিত্তিতে সরাসরি নিয়োগ দিতে পারবে রেলওয়ে। বাকি ৫০ শতাংশ নিয়োগ দিতে হবে অন্য বিভাগের কর্মীদের পদোন্নতির মাধ্যমে। সেক্ষেত্রে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে এমন বিভাগীয় কর্মীদেরকেই গার্ড হিসেবে নিয়োগ দিতে হবে। কিন্তু গার্ড পদে ৫০ শতাংশ সরাসরি নিয়োগের কোটা বেশ আগেই শেষ করেছে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বিদ্যমান নিয়মানুযায়ী কোনো গার্ড নিয়োগ দিতে হলে নিয়ম অনুযায়ী পরিবহন ও বাণিজ্যিক শাখার এলডিএ-কাম টাইপিস্ট থেকেই নিয়োগ দিতে হবে। কিন্তু ওই দুই বিভাগেও চলছে চরম কর্মী সংকট। রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বাণিজ্যিক বিভাগে মঞ্জুরিকৃত ৪৭ পদের বিপরীতে কর্মরত রয়েছে মাত্র ১৬ জন। বাকি ৩১টি পদই শূন্য। পরিবহন বিভাগে মঞ্জুরিকৃত ৩৩ পদের বিপরীতে কর্মরত রয়েছে মাত্র ৮ জন। বাকি ২৫টি পদই খালি। ওই দুই বিভাগে কর্মরতদের অধিকাংশই আবার নারী। যারা গার্ড পদে কাজ করতে আগ্রহী নন। তাছাড়া বিভাগীয় কর্মী হিসেবে নূ্যনতম ৫ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কর্মীর আবেদন করার নিয়ম থাকায় বিভাগীয় প্রার্থীদের সরাসরি গার্ড পদে নিয়োগ পাওয়ার সম্ভাবনাও নেই। এমন পরিস্থিতিতে অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক গার্ড নিয়োগ কিংবা রিক্রুটমেন্ট রুলস্-১৯৮৫ পরিবর্তন ছাড়া সহসা গার্ড সংকট কাটিয়ে ওঠা সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ। রেলপথ মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সূত্র জানায়, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলে গার্ডের মঞ্জুরিকৃত পদের সংখ্যা ২৯৯ জন। তার মধ্যে গার্ড-১ (এ) পদে মঞ্জুরিকৃত ২১টি পদের মধ্যে শূন্য রয়েছে ১০টি। মঞ্জুরিকৃত ৪৬টি গার্ড-২ (বি) পদের মধ্যে শূন্য পড়ে আছে ৬টি। আর মঞ্জুরিকৃত ২৩২টি গ্রেড-২ গার্ড পদে শূন্য রয়েছে ১০৮টি পদ। সব মিলিয়ে মঞ্জুরিকৃত পদের বিপরীতে শূন্য পদ রয়েছে ১২৪টি। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে আরো ১৭ জন বিভিন্ন গ্রেডের গার্ড অবসরোত্তর ছুটিতে গেলে পূর্বাঞ্চল রেলওয়েতে কর্মরত গার্ডের সংখ্যা নেমে আসবে মাত্র ১৫৮ জনে। সংকট নিরসনে সম্প্রতি রেলওয়ে ২৮টি পদে জরুরি ভিত্তিতে অস্থায়ী গার্ড নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করলে রেলওয়ের মহাপরিচালক অস্থায়ী ভিত্তিতে গার্ড নিয়োগ বাদ দিয়ে সরাসরি নিয়োগের নির্দেশনা দেন। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও রাষ্ট্রপতির আদেশ ছাড়া ওভাবে গার্ড নিয়োগের সুযোগ না থাকায় ওই নির্দেশনা বাস্তবায়ন নিয়ে সংশয় রয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, গার্ড সংকট নিরসনে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ চলতি বছরের ২ জানুয়ারি চুক্তিভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্ত ২০ গার্ড ও নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত ৮ জন গার্ডের চুক্তির মেয়াদ আরো এক বছর বাড়ানোর জন্য মহাপরিচালকের অনুমোদন চেয়ে চিঠি দেয়। কিন্তু রেলভবন থেকে মহাপরিচালক আর কোনো গার্ড চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ না দিয়ে স্থায়ীভাবে নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরুর নির্দেশনা দেন। গত ৪ মে রেলের উপপরিচালক (ই-৩) কামাল শেখ স্বাক্ষরিত চিঠিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে নির্দেশনা দেয়া হলেও অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক গার্ড নিয়োগ কিংবা রিক্রুটমেন্ট রুলস্-১৯৮৫ পরিবর্তন ছাড়া গার্ড সংকট কাটিয়ে ওঠা সম্ভব নয় বলে ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ। যদিও রেলভবন থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে নতুন স্থায়ী নিয়োগের অনুমোদন না নিয়ে নিয়ম লঙ্ঘন করে সরাসরি নিয়োগের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তাতে করে কোনো অস্থায়ী গার্ড কিংবা রেলকর্মীরা আদালতের শরণাপন্ন হলে গার্ড নিয়োগ প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে অস্থায়ী ভিত্তিতে হলেও গার্ড নিয়োগের মাধ্যমে সংকট সমাধান করা না গেলে আশঙ্কা রয়েছে ট্রেন পরিচালনা ঝুঁকির মধ্যে পড়ার। রেলভবনের নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে গার্ড নিয়োগের ক্ষেত্রে সরাসরি নিয়োগের সুযোগ নেই বলে পূর্বাঞ্চলের সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হলেও সরাসরি নিয়োগের বিষয়ে অনড় রয়েছে রেলভবন।

এদিকে রেলের চুক্তিভিত্তিক কর্মরত একাধিক কর্মীর অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে চুক্তিভিত্তিক গার্ড হিসেবে কর্মরতদের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কোনো গার্ডেরই চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়নি। সংকট কাটাতে রেল কর্তৃপক্ষ নতুন করে স্থায়ী লোকবল নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে, যা রেলওয়ে রিক্রুটমেন্ট রুলস্-১৯৮৫-এর লঙ্ঘন। অথচ নিয়োগবিধিতে বাধা থাকলেও রেলভবন থেকে সরাসরি গার্ড নিয়োগের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যদিও গার্ড পদে কর্মরত চুক্তিভিত্তিক কর্মীরা তার বিরুদ্ধে আদালতের শরণাপন্ন হলে সরাসরি নিয়োগের ওই উদ্যোগ ভেস্তে যাওয়ার আশঙ্কাই বেশি।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেন জানান, রেলের গার্ড সংকট রয়েছে। সম্প্রতি বেশকিছু গার্ড নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সংকট থাকায় নতুন করে গার্ড নিয়োগের পরিকল্পনা হচ্ছে। গার্ড ছাড়াও শূন্য পদের বিপরীতে রেলের কর্মী সংকট কাটাতে ইতিমধ্যে বেশকিছু পদক্ষেপও নেয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে নিয়ম লঙ্ঘন করে কোনো নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ২৮
ফজর৪:০২
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৩
মাগরিব৬:৪৭
এশা৮:০৭
সূর্যোদয় - ৫:২৬সূর্যাস্ত - ০৬:৪২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৩৬৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.