নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৮ জুলাই ২০১৭, ৩ শ্রাবণ ১৪২৪, ২৩ শাওয়াল ১৪৩৮
রাজশাহীতে অবৈধ স্থাপনা রক্ষায় মরিয়া উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ
রাজশাহী থেকে নাজিম হাসান
রাজশাহী নগরীতে আইন ভঙ্গ করে এক জামায়াত পরিবারকে রক্ষা করতে মরিয়া রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। অন্যের জমি দখল করে ঐ জামায়াত পরিবার ভবন নির্মাণ করে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা করলেও আরডিএ তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। যদিও আরডিএ নোটিশ নিয়ে তাদের ৩০ দিনের মধ্যে স্থাপনা না ভাঙলে মামলা দিবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করেছিল। অভিযোগে জানা গেছে, নগরীর হেতমখাঁ এলাকায় হুমায়ুন কবীর চৌধুরীর সম্পত্তি দখল করে বহুতল নির্মাণ করে ব্যবসা পরিচালনা করছেন লতিফা খাতুনের ছেলেরা। তার এক ছেলে সাদাকাতুল বারী মামুন ছিলেন রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিবিরের এক সময়ের দুর্ধর্ষ ক্যাডার। তার অন্য ভাইয়েরাও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সাথে জড়িত। এই জামায়াত পরিবারটির বিরুদ্ধে ভূমি দখল ও অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ এনে ২০১৪ সালে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কাছে জমির প্রকৃত মালিক দাবিদার হুমায়ুন কবীর অভিযোগ দায়ের করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে উভয়পক্ষকে শুনানির জন্য ডাকে আরডিএ। কিন্তু লতিফা খাতুন শিবির ক্যাডার ছেলেরা আরডিএর নোটিশের কোনো তোয়াক্কা করেনি এমনকি শুনানিতেও যায়নি। ফলে বিধিমোতাবেক, ২০১৪ সালের ১ সেপ্টেম্বর আরডিএ স্থাপনা ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেয়। ৩০ দিনের মধ্যে না ভাঙা হলে ইমারত নির্মাণ আইন-১৯৫২ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও আরডিএ জানায়। আইনে বলা আছে, আরডিএর ঐ নির্দেশ অমান্য করলে অর্থাৎ স্থাপনাটি না ভাঙলে বিবাদীর বিপক্ষে ফৌজদারি মামলা করতে পারবে আরডিএ। যে মামলায় সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও সর্বনিম্ন সাত বছরের কারাদ- বা উভয় দ-ের বিধান রয়েছে। কিন্তু লতিফা খাতুনের ছেলেরা সেই স্থাপনা না সড়ালেও আরডিএ কর্তৃপক্ষ বিধি অনুযায়ী আর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। অভিযোগ উঠেছে, আরডিএর এক শ্রেণীর কর্মকর্তারা মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নিশ্চুপ রয়েছেন। তা না হলে বিধিমোতাবেক ঐ জামায়াত পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার কথা। এ ব্যাপারে আরডিএর চেয়ারম্যান অধ্যাপক বজলুর রহমান জানান, তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন। সংশ্লিষ্ট অথারাইজড অফিসারকে তিনি নির্দেশ দিবেন বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে। এক্ষেত্রে আইনের ব্যত্যয় ঘটবে না বলেও জানান তিনি। অনুসন্ধানে জানা গেছে, এক সময়ের রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিবের দুর্ধর্ষ ক্যাডার সাদাকাতুল বারী মামুন ও তার ভাইয়েরা মিলে নগরীর হেতমখাঁয় ৫৩ শতক জমির উপর গড়ে তুলেছেন বাংলাদেশ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট।

কিন্তু আদালতের রায়ে প্রমাণিত হয়েছে ঐ জমি তাদের নয়। তাদের ঐ জমির ক্রয়সূত্রে এখন মালিক হুমায়ুন কবীর চৌধুরী ও তার ভাইবোনেরা। জমিটি নিয়ে শিবির ক্যাডার সাদাকাতুল বারী মামুনদের সাথে ১৯৬৫ সাল থেকে মামলা চলছিল হুমায়ুন কবীরদের। কিন্তু ২০১২ সালের ২৫ জুলাই হাইকোর্ট রায়ে উল্লেখ করে এ জমির পুরো মালিক হুমায়ুন কবীরদের পরিবার। সাদাকাতুল বারীরা রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। ২০১৫ সালের ২৪ মে আপিল বিভাগ তাদের আপিল খারিজ করে দেন।

এরপর রাজশাহীর সিনিয়র সহকারী জজ আদালত ২০১৭ সালের ১২ জুন জমি পরিমাপ করে প্রকৃত মালিক হুমায়ুন কবীরদের দখল বুঝে দিতে নির্দেশ দেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত আদালতের রায় মানছেন না কেউ। এখনো জমি দখল করে রেখেছে ঐ জামায়াত পরিবার। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক কোনো ব্যবস্থায় নেয়া হচ্ছে না।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৫
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৬৮৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.