নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১২ জুলাই ২০১৯, ২৮ আষাঢ় ১৪২৬, ৮ জিলকদ ১৪৪০
পটিয়ায় ভূমি কর্মকর্তাদের সহায়তায় সরকারি জায়গা দখল
পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে সেলিম চৌধুরী
চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার চাপড়া ভূমি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহায়তায় উপজেলার কোলাগাও ইউনিয়নে গড়ে উঠা বিভিন্ন শিল্প-কারখানা, বেসরকারি মালিকানাধিন বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর সরকারি জায়গা পাল্লা দিয়ে দখলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। দখলকৃত জায়গার মধ্যে দীর্ঘদিনের প্রবহমান খাল, কর্ণফুলী নদীর পাড়, ভেল্লা পাড়া খাল, বোয়ালখালী খালসহ বিভিন্ন জোয়ার ভাটার প্রবাহমান খালের জায়গাও তারা দখল করে নিয়েছে। সম্প্রতি পটিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি সাবি্বর আহমদ সানি মোবাইল কোর্ট অভিযান চালিয়ে কর্ণফুলী বিদ্যুৎকেন্দ্র দখলে রাখা একটি খালের জায়গা

দখলমুক্ত করলেও পুনরায় দখলে নিয়েছে বলে স্থানীয়রা জানায়। চাপড়া ভূমি অফিস সূত্র জানায়, উপজেলার কোলাগাঁও, হাবিলাসদ্বীপ, জিরি, কুসুমপুরাসহ চারটি ইউনিয়নের ২৬টি মৌজায় ৯১২.২৫ একর সরকারি জমি রয়েছে। এরমধ্যে লিজযোগ্য রয়েছে ১১৪ একর। ৭৯৮.২৫ একর জমি বাকি থাকার কথা থাকলেও লিজ দেয়া হয়েছে ৫০০ একরেরও বেশি সরকারি জায়গা। প্রশাসনের একটি অসাধু চক্রের সাথে হাত করে সরকারি জায়গার উপর শিল্প কারখানা গড়ে তোলা হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের নিষেধাজ্ঞা থাকা শর্তেও তারা পরিবেশ অধিদপ্তরের আইন মানছে না। সরকারি জায়গা দখলের এই অভিযোগ উঠেছে আল বারকা পাওয়ার প্ল্যান্ট লিমিটেড, আকলিমা পাওয়ার প্ল্যান লিমিটেড, কর্ণফুলী পাওয়ার প্ল্যান লিমিটেড, ফোর এইচ গ্রুপ, ওয়েস্টিন মেরিন শীপ ইয়ার্ড লিমিটেডসহ একাধিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। পরিবেশ বিনষ্ঠকারী বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো জনবসতিতে স্থাপন করায় এর প্রতিবাদে কোলাগাঁও এলাকার সচেতন এলাকাবাসী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে। পরিবেশ নষ্ট করে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পাশাপাশি সরকারি নদীনালা, খালবিল তারা দখলে নিচ্ছে বলে সচেতন নাগরিক কমিটির সংগঠক মোহাম্মদ পারভেজ রানা জানান। এছাড়াও অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্তদের বিরুদ্ধেও রয়েছে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনার অভিযোগ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঠিক সময়ে অফিসেও আসেন না এবং বহিরাগত কিছু লোক অফিসে চেয়ার টেবিল নিয়ে ভূমি কর্মকর্তা সেজে অফিস করার দৃশ্যও ধরা পড়েছে। রোববার উপজেলার কোলাগাঁও ইউনিয়নের চাপড়া ভূমি অফিসে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, প্রচুর লোকজনের ভিড়। কর্মকর্তা-কর্মচারী অনেকে সাড়ে ১২টা বেজে গেলেও অফিসে আসেননি। ভূমি সহকারী কর্মকর্তা রমিজ আহামদ নিজেও ছিলেন অনুপস্থিত।

অফিসের উপ-সহকারী কর্মকর্তা এ.বি.এম বখতিয়ার হোসেন, উপসহকারী কর্মকর্তা রাজীব দে, অফিসের কাজকর্ম বাদ দিয়ে বাইরের দালালদের সাথে গল্প গুজব নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অফিসের বহিরাগত মোহাম্মদ সুমন ও কেশব দাশ কেউ ২০ বছর আর কেউ ৩/৪ বছর অফিসে কাজ করে যাচ্ছেন। কোলাগাঁও এলাকায় সরকারি জায়গা বিভিন্ন শিল্পকারখানাকে লিজ দিতে সযোগিতা করার অভিযোগ রয়েছে পটিয়া উপজেলা বিএনপি নেতা ও কোলাগাঁও ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শামশুল ইসলামের বিরুদ্ধে। লোকালয়ে বিদ্যুৎকেন্দ্র গড়ে উঠায় পরিবেশ বিপর্যয় ঘটার কারণে এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবাদ জানিয়ে আসলেও কোনো সুরহা পায়নি বলে এলাকাবাসী জানায়। কোলাগাঁও ইউনিয়নের চাপড়া এলাকার মৃত লাল মোহন চৌধুরীর পুত্র তপন চৌধুরী একই এলাকার তাপস চৌধুরী অবৈধভাবে সরকারি জায়গা লিজ নেয়ার ঘটনায় পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ২০১০ সালে লিজ বাতিল করেন। বাতিলকৃত লিজের জায়গা পটিয়া ভূমি অফিসের অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী মিলে গোপনে লিজ দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এছাড়া কোলাগাঁও চাপড়া এলাকার মৃত মদন মোহন চৌধুরীর পুত্র তাপস চৌধুরীর বিরুদ্ধে এ বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ২৪ জন লিখিত অভিযোগও করেছেন। তাপস চৌধুরী বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভূমি অফিস থেকে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ ফাইলপত্র চুরির অভিযোগে বিচারাধীন একটি মামলাও রয়েছে বলে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও অভিযোগকারী তপন চৌধুরী জানান। এ প্রসঙ্গে কোলাগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আহমদ নুর বলেন, আমার এলাকার সরকারি খাস জায়গাগুলো বিভিন্ন শিল্পকারখানার মালিকেরা অবৈধভাবে দখলে নেয়ার বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)'কে জানানোর পরও কোনো কাজ হয়নি, সরকারি কিছু কর্মকর্তাও এইসব কর্মকা-ে জড়িত আছেন বলে তিনি জানান। চাপড়া ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা রমিজ আহামদ বলেন, সরকারি খাস জায়গা দখলের বিষয়টি আমরা এসিল্যান্ডকে জানিয়েছি। সম্প্রতি মোবাইল কোর্টের অভিযান চালিয়ে একটি কারখানার কবল থেকে সরকারি খালের জায়গা দখলমুক্ত করেছেন। ভূমি কর্মকর্তাদের সহায়তায় সরকারি জায়গা শিল্পকারখানায় দখলে নেয়া প্রসঙ্গে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবি্বর আহমদ সানি বলেন, কিছুদিন আগে একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র সরকারি জায়গা দখল করার খবর পেয়ে আমরা অভিযান চালিয়ে দখলমুক্ত করেছি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ১৭
ফজর৪:৩০
যোহর১১:৫৪
আসর৪:১৮
মাগরিব৬:০৪
এশা৭:১৭
সূর্যোদয় - ৫:৪৫সূর্যাস্ত - ০৫:৫৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৮০১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.