নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রবিবার ১৮ মে ২০১৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২১, ১৮ রজব ১৪৩৫
দাখিলে বাংলাদেশে প্রথম ঝালকাঠীর এন এস কামিল মাদরাসা
ঝালকাঠি প্রতিনিধি
এবারও ঝালকাঠী এন এস কামিল মাদরাসা (নেছারাবাদ মাদরাসা) দাখিল পরীক্ষায় ২৭৪টি জিপিএ-৫ পেয়ে মাদরাসা বোর্ডে ১ম স্থান অর্জন করেছে। এ মাদরাসা থেকে ৩০০ জন ছাত্র দাখিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। যাদের মধ্যে বিজ্ঞানে ১৫০ জন ছাত্রের সকলেই জিপিএ-৫ পেয়েছে। সাধারণ বিভাগে ১৫০ জন ছাত্রের মধ্যে ১২৪ জন ছাত্র জিপিএ-৫ পেয়েছে। বাকি সকলে এ গ্রেডে উত্তীর্ণ হয়েছে। মরহুম হযরত কায়েদ সাহেব হুজুর প্রতিষ্ঠিত ঝালকাঠী এন এস কামিল মাদরাসার এ সাফল্য বিগত দিনের ধারাবাহিকতারই ফসল। কায়েদ সাহেব হুজুর ১৯৫৬ সালে মকতব দিয়ে এ প্রতিষ্ঠানটির গোড়াপত্তন করেন। কালের পরিক্রমায় আজ এ মাদরাসাটি বরিশাল বিভাগের মধ্যে একমাত্র অনার্স ও মাস্টার্স পর্যায়ের প্রতিষ্ঠান। দাখিল-আলিমে বিজ্ঞান, কম্পিউটার, ফাযিলে ২ বিষয়ে অনার্সসহ কামিলে হাদিস, তাফসির ও ফিকহ বিভাগ নিয়ে গড়ে ওঠা চার হাজার ছাত্রের পদচারণায় মুখরিত বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানে রূপ লাভ করেছে।

মাদরাসার বর্তমান অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ খলীলুর রহমান নেছারাবাদী ১৯৯৪ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে গভর্নিং বডি, শিক্ষকম-লী ও অভিভাবকদের সহযোগিতায় মাদরাসার অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষাজগতে দেশসেরা প্রতিষ্ঠানসমূহের এক মাইল ফলকে পরিণত করেছে এ মাদরাসাকে। প্রতিষ্ঠানের এ সাফল্যের কারণ বর্ণনা করতে গিয়ে অধ্যক্ষ বলেন, দলীয় রাজনীতিমুক্ত শিক্ষাঙ্গন, সেমিস্টার পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণ, শিক্ষার্থীদের মানোন্নয়নে প্রয়োজনীয় ক্লাসটেস্ট গ্রহণ, দুর্বল ছাত্রদের জন্য বছরের বিভিন্ন সময়ে ফীডব্যাক ক্লাস, শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রমের সফল বাস্তবায়ন, আবাসিক ছাত্রদের জন্য ঘণ্টাওয়ারী পরিদর্শক ও টিউটর শিক্ষকের ব্যবস্থা এবং অভিভাবক সম্মেলনসহ অত্যাধুনিক ব্যবস্থাপনার কারণে কেন্দ্রীয় পরীক্ষাসমূহে এ প্রতিষ্ঠান বরাবরই গৌরবোজ্জ্বল ফলাফল লাভ করছে। গত বছর এ মাদরাসা ১৮৮টি জিপিএ-৫ পেয়ে মাদরাসা বোর্ডে ৫ম স্থান লাভ করেছিল।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত