নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৭ মে ২০১৮, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৩০ শাবান ১৪৩৯
জনতার মত
বায়ু দূষণ সব প্রাণীর দুশমন
মো. শামীম মিয়া
দরিদ্র জেলা নামে পরিচিত আমাদের গাইবান্ধা জেলা। গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার নদী ভাঙ্গন এলাকা আমদির পাড়া গ্রামে বসবাস করি, পরিবার চালাতে ছুটতে হয় সবুজ শ্যামল গ্রাম ছেড়ে ঢাকা শহরে। মানুষের মুখে শুনেছি ঢাকা শহরে গেলে মানুষের দুঃখ, কষ্টগুলো মুছে যায় আর সুখের গহীনে ঢেকে যায়। কিন্তু একি অবস্থা আমার_আমাদের ঢাকা শহরের। বাস্তবে কী দেখছি, বুঝেছি বায়ূ দূষণ, শব্দ দূষণ, বর্জ্য উদ্ভূত দূষণে জেরবার হয়ে যাচ্ছে জনজীবন, বিপর্যপ্ত হয়ে পড়ছে।

বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায়, ঢাকা দূষণের অন্যতম কারণ হচ্ছে ঢাকা ও ঢাকার আশেপাশে ছোট বড় শিল্প কারখানার চিমনি থেকে কালো ধোঁয়ার নির্গমন, ডিজেলচালিত ১৫-২০ বছরের পুরনো গাড়ির কালো ধোঁয়া, জ্বালানি হিসাবে ব্যবহৃত কাঠ-কয়লা, গোবর, পঁচা বর্জ্য, ইত্যাদি থেকে উদ্ভূত ধোঁয়া জনস্বাস্থ্যের উপর পড়ছে, যার ক্ষতিকারক প্রভাব অনিবার্য। ডাক্তাররা বলেন, বায়ু দূষণের ফলে, অ্যাজমা, সর্দিকাশি, হাপানি, ফুসফুসের রোগ, স্ট্রোক, হৃদরোগসহ ইত্যাদি কঠিন রোগে ভুগছে মানুষ। জরিপ অনুযায়ী ২০১৫ সালে সারা বিশ্বে প্রায় ৪২ লাখ মানুষের অকাল মৃত্যু কারণ এই বায়ু দূষণ। জানা যায়, বিশ্বে যে সব কারণে মানুষের বেশি মৃত্যু হয় তার মধ্যে বায়ু দূষণ রয়েছে পঞ্চম স্থানে। বাংলাদেশে মৃত্যুর কারণগুলোর তালিকায় শুরুর ১০টির মধ্যে ৫টি প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বায়ু দূষণের সাথে। এ দেশে ফুসফুসের ক্যান্সারে ১৩%, শ্বাসতন্ত্রের প্রাদাহে ৭%, ফুসফুসেরর্ দীঘমেয়াদী কিছু রোগে ৭%, ইশেমিক হৃদরোগে ৬%, এবং স্টোক থেকে মারা যায় ৫% মানুষ। এদেশের ৭০ লাখ মানুষ শ্বাসকষ্টের রোগী তার মধ্যে অর্ধেকই শিশু। প্রতিবেদন অনুযায়ী বায়ু দূষণের কারণে বাংলাদেশে বছরে ১ লাখ ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। আর বায়ু দূষণের ফলে শিশু মৃত্যুর হারের দিক থেকে পাকিস্তানের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। বাংলাদেশে বায়ু, পানি ও পরিবেশ দূষণে বছরে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৪২ হাজার কোটি টাকা, যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ২.৭ ভাগ। শুধু বায়ু দূষণে ক্ষতি হয় ২০ হাজার কোটি টাকার । এসব দূষণের সব চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় শিশুরা ।

বিশ্বব্যাংক জানায় শহরে বাতাসের দূষণ যদি ২০% কমানো সম্ভাব হয় তাহলে প্রতি বছরে বাঁচবে ১২০০ থেকে ৩৫০০টি প্রাণ এবং ৮০ থেকে ২৩০ মিলিয়ন মানুষ বিভিন্ন অসুখে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা পাবে।

গুণীজনরা বলেন, আমরা খাদ্য না খেলে কিছু দিন বাঁচতে পারি, পানি না খেলে কয়েক দিন বাঁচতে পারি, আর বিশুদ্ধ বায়ু না পেলে কয়েক মুহূর্তের মধ্যে আমাদের মৃত্যু ঘটবে। তাই দেশের বায়ু, মাটি, পানি সঠিকভাবে সংরক্ষিত না হলে ভবিষ্যৎ প্রাণের পরিবেশে ভীষণ সংকট নেমে আসবে। এখন প্রশ্ন হলো, যে কারণে এতো মানুষের অকাল মৃত্যু, সেই বায়ু দূষণের প্রতিকারে বা প্রতিরোধে সরকার বা প্রশাসনের ভূমিকা চোখে পড়ার মতো নয়। আমাদের দেশের পরিবেশ রক্ষায় আইন ও নীতিমালা আছে কিন্তু তা মানা হচ্ছে না বা বাস্তবায়ন চোখে পড়ার মতো নয়। আইন এবং ফাইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মহাজনরা তাদের কাজ হাসিল করে চলছে। তা থামানোর মতো যেন কেউ নেই আমাদের দেশে। বায়ু দূষণের কারণে যেহেতু লাখ লাখ প্রাণ ক্ষতিগ্রস্ত তাই বায়ু দূষণ রোধে সরকার এবং প্রশাসনকে কঠিন পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে আমি মনে করি। গুণীজনরা বলেন, সামাজিক ন্যায়বিচারহীনতা, এবং ওপর থেকে নিচ বিভিন্ন স্তরের শক্তি ও ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে দুর্বৃত্তপরায়ন দেশ-প্রেমহীন, নৈতিক শিক্ষা, মূল্যবোধ, মায়া, মমতাহীন প্রবৃত্তির লোকের প্রাধান্য থাকায় বায়ু দূষণের মতো মারাত্মক ঘটনাগুলো ঘটছে অহরহ।

মো. শামীম মিয়া : লেখক
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২০
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৫সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫০৯৮.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.