নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৭ এপ্রিল ২০১৮, ৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৩৯
নীলফামারীর জনসভায় এরশাদ
সরকার কোনো প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেনি
জনতা ডেস্ক
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ১০ টাকা কেজির চাল আর ঘরে ঘরে চাকরি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসেছিল। তবে শেখ হাসিনা তার দেয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারে নাই। দেশের মানুষ ১০ টাকা কেজির চাল ৪০/৫০ টাকায় কিনছে আর বেকাররা চাকরিও পায়নি।

গতকাল সোমবার দুপুরে নীলফামারীর জলঢাকা ডাকবাংলো মাঠে জাতীয় পার্টিতে যোগদান উপলক্ষে এক জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

এরশাদ বলেন, উন্নয়ন যতটুকু হয়েছে সব ঢাকায়, ঢাকার বাইরে কোনো উন্নয়ন হয়নি। আমি তিস্তা ব্যারেজ করেছিলাম, তবে তিস্তা আজ ধু-ধু বালুচর। তিস্তা নদীতে এখন গরু গাড়ি চরে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের সময় মানুষ অত্যাচার, খুন, গুম আর জুলুম ছাড়া কিছুই পায়নি। আগামীতে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসলে দেশের মানুষ শান্তিতে থাকবে।

এরশাদ বলেছেন, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে আওয়ামী লীগ সরকারের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে। বর্তমানে তাদের অবস্থা নাজুক। জনগণের আস্থা হারিয়ে সরকার এখন দিশেহারা। আর বিএনপির অবস্থা ছিন্নভিন্ন। তাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় কারাভোগ করছেন। বিএনপি এখন নেতাশূন্য দল। বিএনপি নির্বাচনে আসুক না আসুক জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশ নেবে জানিয়ে এরশাদ বলেন, বিএনপির অবস্থা ভালো নয়। রংপুরসহ সারাদেশে জাতীয় পার্টির গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসবে।

জনগণ এখন পরিবর্তন চায় দাবি করে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি এককভাবে নির্বাচন করবে বিষয়টি এরশাদ পুনর্ব্যক্ত করেছেন । পাশাপাশি তিনি জাপাতে কোনো বিরোধ নেই দাবি করে বলেন আমরা সকল আসনে প্রার্থী দিবো। যাকেই মনোনয়ন দেই তাকেই ভোট দেয়ার জন্য তিনি জাতীয় পার্টির সব নেতাকর্মীসহ জনগণকে প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানান।

জাপা চেয়ারম্যান তার বক্তব্যে খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেন, তিনি আমাকে অন্যায়ভাবে ৬ বছর কারাগারে আটক করে রেখেছিলেন। আল্লাহর বিচার দেখেন তিনি এখন কারাগারে। আমি যখন কারাগারে ছিলাম আমাকে কারও সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেয়া হতো না। অসুস্থ হবার পরেও আমাকে হাসপাতালে নেয়া হয়নি। এখন তিনি সুস্থ হয়েও হাসপাতালে যাবার ভান করেন। এ প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, রংপুর ছিল জাতীয় পার্টির দুর্গ। সেটা কিছুটা নষ্ট হয়ে গেছে। আমাদের আসনগুলো ছিনতাই করা হয়েছে। এ দুর্গ মেরামত করতে হবে। আগামী নির্বাচনে রংপুর অঞ্চলের ২২টি আসনে জয়ী হলে আমরাই ক্ষমতায় যাব।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে জনবিছিন্ন উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি এখন জনগণের একমাত্র আস্থার দল। জাতীয় পার্টিকে দেশের সব রাজনৈতিক দল সমীহ করে। বিগত দিনে আমাদের ছাড়া কেউ-ই এককভাবে ক্ষমতায় যেতে পারেনি; আগামীতেও পারবে না। ১৯৯১ সালে বিএনপি আর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ আমাদের সহায়তা নিয়েই সরকার গঠন করেছিল। আমাদের অবহেলা করবেন না। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জনগণ ভোট দিয়ে জাতীয় পার্টিকেই দেশ পরিচালনার দায়িত্বভার অর্পণ করবে বলে আমার বিশ্বাস।

এরশাদ কোটা ব্যবস্থা নিয়ে বলেন, কোটা ব্যবস্থা নিয়ে ছাত্রদের মনে দীর্ঘদিনের ক্ষোভ ছিল, তাদের মনে কষ্ট, দুঃখ ছিল। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তবে একেবারেই মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিল করা ঠিক হবে না।

তিস্তা নদী পানি শূন্য প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, আমি ক্ষমতায় যখন ছিলাম তখন তিস্তা ব্যারেজ সেচ প্রকল্প নির্মাণ করেছি। বিএনপি ও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তিস্তার পানি ভারতের কাছ হতে নিয়ে আসতে পারেনি। আগামীতে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এলে তিস্তা পানিসহ রংপুর অঞ্চলে পাইপলাইনে গ্যাস নিয়ে আসবে।

এই জনসভার মাধ্যমে জলঢাকা উপজেলার গাবরোল গ্রামের ছেলে বর্তমানে কঙ্বাজারে কঙ্ ন্যাশনাল হাসপাতালের মালিক ডা. বাদশা আলমগীরসহ বেশ কিছু ব্যক্তি জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন।

জলঢাকা উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শাহ্ আব্দুল কাদের বুলু চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মমিনুল ইসলাম মঞ্জুর সঞ্চালনায় এসময় আরো বক্তব্য দেন দলের কো-চেয়ারম্যান জি.এম কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজর (অব.) খালেদ আক্তার, স্থানীয় সরকার ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাফা, বিরোধী দলীয় হুইপ শওকত আলী চৌধুরী এমপি, গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, নীলফামারী-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, নীলফামারী জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব এ. কে. এম সাজ্জাদ পারভেজসহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ।

এর আগে বিভিন্ন দলের শতাধিক কর্মী এরশাদের হাতে ফুলের তোড়া উপহার দিয়ে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৩
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৪৭৮.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.