নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ৬ ফাল্গুন ১৪২৩, ২০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮
হত্যা-নির্যাতনে উদ্বিগ্ন ক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা
সংসদে সম্পাদকের বিরুদ্ধে দুই এমপি'র নোটিশ গ্রহণ
বিশেষ প্রতিনিধি
একের পর এক হত্যা ও নির্যাতনের ঘটনায় উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও শংকিত দেশের সাংবাদিক সমাজ। গত ২ ফেব্রুয়ারি দুপুরে শাহজাদপুরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র হালিমুল হক মিরুর শটগানের গুলিতে দৈনিক সমকালের সাংবাদিক শিমুল আহত হন। পরের দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনার পথে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে সরকার দলীয় ৪ জন সংসদ সদস্যের মাদক ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ততা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করার পর ইংরেজি দৈনিক 'ডেইলি অবজাভার'-এর অপরাধবিষয়ক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মামুনুর রশীদকে গত ১২ ফেব্রুয়ারি গাড়িচাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। যদিও শেষ পর্যন্ত তিনি প্রাণে বেঁচে গেছেন। তবে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেকে) ভর্তি হয়েছিলেন।

মোটরসাইকেলসহ দুর্ঘটনায় পড়া ইংরেজি দৈনিক 'ডেইলি অবজাভার'-এর অপরাধবিষয়ক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক চিকিৎসাধীন মামুনুর রশীদ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, একটি প্রাইভেটকার তাকে অনুসরণ করছিল। বেশ কয়েকবার চাপা দেয়ারও চেষ্টা করেছে। কারওয়ানবাজার আন্ডারপাসের কাছাকাছি আসার পর আবারও তাকে চাপা দেয়ার চেষ্টা করলে তিনি দ্রুত পাশ কাটাতে যান। একটি শিশু চলে আসে গাড়ির সামনে।

মামুনুর রশীদের দাবি, সেই শিশুকে বাঁচাতে গিয়ে মোটরসাইকেল থেকে তিনি প্রায় ৬০ ফুট দূরে গিয়ে ছিটকে পড়েন এবং মারাত্মক আহত হন। ইতোমধ্যে তার অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে। বছরের দ্বিতীয় মাস ফেব্রুয়ারিতেই দুই সাংবাদিকের ওপর এমন বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় গণমাধ্যমসহ দেশের বিশিষ্ট মহলে সমালোচনা উঠেছে। এমন ঘটনায় উদ্বেগ্ন, ক্ষুব্ধ ও শংকিত সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

জানা গেছে, ২৩ জানুয়ারি ডেইলি অবজারভারে বা 'পুলিশ অ্যাওয়েট পিএমেস অর্ডার টু ক্র্যাকডাউন অন ড্রাগ লর্ডস' শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে সরকারদলীয় আলোচিত ৪ সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে মাদক বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণের অভিযোগ করা হয়। ঐ প্রতিবেদন প্রকাশের পরই পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও প্রতিবেদক মামুনুর রশীদের বিরুদ্ধে ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী ১০ কোটি টাকার মানহানির মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি নিয়ে নিজাম উদ্দিন হাজারী জাতীয় সংসদে ইকবাল সোবহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিষোদগার করেন। নিজাম উদ্দিন হাজারী ছাড়াও নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানও বিষয়টি নিয়ে ইকবাল সোবহান চৌধুরীর তীব্র সমালোচনা করেন। এদিকে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ব্যক্তিগত অধিকার ক্ষুণ্নের অভিযোগ এনে ইংরেজি দৈনিক 'ডেইলি অবজারভার'র বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের দেয়া নোটিশ গ্রহণ করেছে সংসদ। নোটিশটির বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কমিটিতে পাঠানো হয়েছে। ঐদিন সংসদ অধিবেশনের শুরুতেই স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বিষয়টি সংসদকে অবহিত করেন।

ডেইলি অবজারভার ছাড়াও নারায়ণগঞ্জের সরকারদলীয় এই সংসদ সদস্য প্রথম আলো এবং বাংলা ট্রিবিউনের বিরুদ্ধেও নোটিশ আনেন। তবে বিধি অনুযায়ী শর্ত পূরণ না হওয়ায় তা সংসদগ্রহণ করেনি। ডেইলি অবজারভারের বিরুদ্ধে আনা নোটিশটি গ্রহণ করে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, 'আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি বিকালে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান ব্যক্তি অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে ৩টি নোটিশ দিয়েছেন। নোটিশ ৩টির মধ্যে প্রথমটি দ্য ডেইলি অবজারভার পত্রিকায় ২৩ জানুয়ারি প্রথম পৃষ্ঠায় চতুর্থ কলামে শিরোনামে অসত্য, ভিত্তিহীন, কাল্পনিক খবর প্রকাশ করায় সদস্যের পারিবারিক, সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন এবং দেশ-বিদেশে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হওয়ায় তার সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে বিশেষ অধিকার ক্ষুণ্ন হওয়ার কথা নোটিশে উল্লেখ করেছেন।' এর আগে গত ২৭ জানুয়ারি রাজশাহী-৪ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এনামুল হক 'মনগড়া' সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগ এনে সংসদে বিশেষ অধিকার ক্ষুণ্নের নোটিশ উত্থাপন করেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী তা আমলে নিয়ে সংসদ সদস্যদের সম্মতিক্রমে বিশেষ অধিকার সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটিতে পাঠান। স্পিকার এ কমিটির সভাপতি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এ কমিটির সদস্য।

ইংরেজি দৈনিক 'ডেইলি অবজারভার'-এ প্রকাশিত সংবাদের জের ধরে তিনি ঐদিন পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরীকে সংসদে তলব করারও দাবি জানিয়ে ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন একাংশের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেছেন, দেশজুড়ে সাংবাদিক নির্যাতন চলছে। সরকারি ও বিরোধী দল এবং পুলিশ প্রশাসনের কতিপয় ব্যক্তি সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছে। এই নির্যাতনকারীর তালিকায় এবার যোগ হচ্ছে আইনপ্রণেতাও। এ থেকে উত্তরণে আজকে সাংবাদিক সমাজকে রুখে দাঁড়াতে হবে।

একই প্রসঙ্গে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) অপর অংশের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান বলেন, সরকারের স্বৈরাচারী মনোভাব স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। সরকারের ছত্রছায়ায় ক্রমেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে দলীয় এমপিরা। সরকার নিজেদের ক্লিন ইমেজ বজায় রাখতে গণমাধ্যমের বাক-স্বাধীনতাকে খর্ব করছে। আর সাংবাদিক হত্যা ও নির্যাতনের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হওয়া ক্রমেই বাড়ছে।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, আমাদের প্রিয়নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে ও আজকে মামলা করা হচ্ছে। কারণ তিনি মাদক সম্রাট ও চিহ্নিত গডফাদারদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করেছেন। একের পর এক মানহানির মামলা করে ওই চক্রটি নিজেদের মান আছে কি-না তা নিয়েও আজকে দেশবাসীর কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে একজন সাংবাদিককে হত্যার শিকার হওয়া সভ্য সমাজে কাম্য হতে পারে না।

সাংবাদিক নির্যাতনকারী সে যেই হোক তাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার দাবি জানিয়ে ঢাকা বিভাগ সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আলম হোসেন বলেন, সাংবাদিক নির্যাতনকারীদের আইনের আওতাই না আনতে পারলে তার দায়ভার সরকারকেই নিতে হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা লক্ষ্য করছি সরকারের ভেতরে একটি মহল সাংবাদিকদের ওপর হামলার মাধ্যমে তারা রাষ্ট্রকে গণমাধ্যমের মুখোমুখি করার চেষ্টা করছে। আমরা সরকারের মুখোমুখি হতে চাই না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য উপদেষ্টা ও ডেইলি অবজারভারের সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজ) মহাসচিব ওমর ফারুক বলেন, 'সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরীকে নিয়ে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান জাতীয় সংসদে ঢালাওভাবে বক্তব্য দিয়েছেন, তা দুঃখজনক। স্পিকারকে আমরা বক্তব্য এঙ্পাঞ্জ করার আহ্বান জানিয়েছিলাম। কিন্তু দুঃখজনক বিষয় উল্টো শামীম ওসমানের নোটিশগ্রহণ করেছেন।'

তিনি বলেন, গণমাধ্যমের কোনো প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কারো অভিযোগ থাকলে তিনি প্রতিবাদ করতে পারেন কিংবা প্রেস কাউন্সিলে যেতে পারেন। কিন্তু জাতীয় সংসদে যার কথা বলার কোনো এখতিয়ার নেই, তাকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে বক্তব্য প্রদান অবশ্যই শিষ্টাচারবর্জিত।

প্রসঙ্গত : চলতি বছরে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে এটিএন নিউজের সাংবাদিক ঈশান-বিন-দিদার, ক্যামেরাপারসন আবদুল আলীম, ফটোসাংবাদিক জীবন আহমেদের ওপর হামলা চালায় পুলিশ।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ২৩
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪২৬৯.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.