নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ৬ ফাল্গুন ১৪২৩, ২০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮
মাংস ব্যবসায়ীদের ধর্মঘট শেষ হচ্ছে আজ বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক কাল
স্টাফ রিপোর্টার
বাণিজ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে আলোচনার ডাক পেয়ে নতুন কোনো কর্মসূচি না দিয়ে আলোচনার টেবিলে দাবি আদায়ের প্রত্যাশার কথা বলেছেন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা। গতকাল শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেন, শনিবার পর্যন্ত আমাদের ধর্মঘট ছিল। আমরা তা পালন করব। আপাতত নতুন কোনো কর্মসূচি দিচ্ছি না। আমরা আশা করি, আলোচনার মাধ্যমে আমাদের দাবি মেনে নেওয়া হবে। আগামীকাল রোববার সকাল ১১টায় বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাদের বৈঠকের কথা রয়েছে। এছাড়া রোববার বেলা ২টায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাদের বৈঠকের কথা। এদিকে ,রোববার ঢাকায় সরকারঘোষিত 'মিটলেস ডে' হওয়ায় এমনিতে সেদিন পশু জবাই বন্ধ থাকে। তবে শনিবার পর্যন্ত ধর্মঘটের পর এখনই নতুন কর্মসূচি না থাকায় রোববার ঢাকায় গরু ও খাসির মাংস বিক্রি করা হবে বলে আভাস পাওয়া গেছে সমিতির নেতাদের কথায়।

গাবতলী গরুর হাটে অতিরিক্ত খাজনা আদায় বন্ধ, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তাকে অপসারণসহ চার দফা দাবিতে গত সোমবার মাংস বিক্রেতাদের ছয় দিনের এই ধর্মঘট শুরু হয়। তাদের এই ধর্মঘটের কারণে ঢাকার বিভিন্ন কাঁচাবাজারের মাংসের দোকানগুলো বন্ধ রয়েছে। গরু ও খাশির মাংসের সংকটের কারণে রাজধানীতে দাম বেড়েছে মুরগীর। বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি ও ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির যৌথ সংবাদ সম্মেলনে রবিউল জানান, শনিবার পর্যন্ত তাদের ধর্মঘটের কর্মসূচি ছিল, তা পালন করা হবে। আপাতত নতুন কোনো কর্মসূচি তারা দিচ্ছেন না। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সঙ্গে রোববার তাদের বৈঠক। সেখানে আলোচনার মাধ্যমে দাবি মেনে নেওয়া হবে বলেই তারা আশা করছেন। দাবি মানা না হলে এরপর ধর্মঘট হবে সারা দেশে। আর সব দাবি পুরোপুরি মানলে মাংসের কেজি ৪০০ টাকার নিচে নেমে আসবে বলে আমি আশা করি। আর কয়েকটি দেশ থেকে ঠিকঠাক মত বৈধ পথে গরু আমদানি করা গেলে এই দাম নেমে আসবে ৩০০ টাকার নিচে। গাবতলী গরুর হাটের ইজারা বাতিল, হুন্ডি ব্যবসায়ী 'কালা মইজাকে' বিচারের আওতায় আনা, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের 'দুর্নীতিবাজ' প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তাকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা, ট্যানারি শিল্প মালিকদের দুই ভাগে ভাগ করে সফল ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা এবং ব্যর্থ মালিকদের কারখানা বন্ধ করার দাবি রয়েছে মাংস ব্যবসায়ীদের।

রবিউল বলেন, বৈধপথে নেপাল, ভুটান ও মায়ানমার থেকে গরু আমদানি করতে হবে। আমাদের দেশে আগে ৬৫ শতাংশ পশু ভারত থেকে আনা লাগত। এখন ৩৫ শতাংশ আনা লাগে। আর আগামি তিন বছর আনতে হবে ৩০ শতাংশ পশু। পশু আনার জন্য আমরা যেন বৈধ পথে টাকা নিয়ে যেতে পারি, সেই ব্যবস্থা করতে হবে। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের দাবি মেনে নিন, তা না হলে ইচ্ছেমত দামে মাংস বিক্রি করার হুকুম দিন। ভ্রাম্যমাণ আদালত দিয়ে জেল জরিমানা বন্ধ রাখুন। ঘাটে ঘাটে চাঁদাবাজি আর দুর্নীতিকে মাংসের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেন এই ব?্যবসায়ী। ভারতীয় বর্ডার পাস করতে ১৫-২০ হাজার টাকা লাগে। সীমান্ত থেকে গাবতলী পৌঁছতে একটি গরুতে ব্যয় হয় ২০-৩০ হাজার টাকা। দেশে ইজারাদার, চামড়া ব্যবসায়ী, হুন্ডি ব্যবসায়ী, ঢাকা উত্তর সিটির কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারণে আজ ৫০০ টাকা কেজিতে মাংস বিক্রি করতে হচ্ছে। ট্যানারি মালিকদের 'সিন্ডিকেটের কারণে' চামড়ার দাম কমে যাওয়া নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব। গরুর যে চামড়া আমরা একসময় ৪০০০-৫০০০ টাকায় বিক্রি করতাম, সেই চামড়া এখন ২০০-৬০০ টাকায় বিক্রি করতে হয়। ছাগলের যে চামড়া আমরা একসময় ৫০০-৬০০ টাকায় বিক্রি করতাম, তা এখন ২০-৩০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুন - ২৪
ফজর৩:৪৪
যোহর১২:০১
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৭
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩০৫৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.