নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ৬ ফাল্গুন ১৪২৩, ২০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮
কৃষিক্ষেত্রে অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহারে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি
এফএনএস
সদ্য অতিক্রান্ত শীত মৌসুমে বাজারে পাওয়া গেছে নানা জতের সবজি, যেগুলোর বেশিরভাগই অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার করে উৎপাদিত হয়েছে। পরিষ্কার ঝকঝকে এসব সবজি একটুও পোকায় খাওয়া নয় এবং দেখতেও টাটকা। কিন্তু এ সবজি খেয়ে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। দিনে দিনে মানুষের শরীরে জমা হচ্ছে বিষ, যার প্রতিক্রিয়ায় মেজাজ তিরিক্ষি হয়ে যাচ্ছে। হৃৎপিন্ড, পাকস্থলীসহ শরীরের নানা অংশে বিবিধ রোগ দেখা দিচ্ছে। সবজিতে পোকা থাকলে কেউ পছন্দ করে না। আবার উৎপাদনও ভালো হয় না। বেশি উৎপাদন ও যথাযথ মূল্য পাওয়ার আশায় উৎপাদনকারী সবজিতে সার ও কীটনাশক ব্যবহার করেন।

মাঠপর্যায়ের অনুসন্ধানে জানা যায়, শুধু শীতকালে নয় নানা ধরনের ফসলে সারাবছরই কীটনাশক ব্যবহার করা হয়। তবে সবজিতে কীটনাশকের ব্যবহার অনেক বেশি। কৃষকরা বলছে, কোনো কোনো সবজিতে এক দিন পরপর কীটনাশক দেওয়ার প্রয়োজন হয়। এ বিষ সক্রিয় থাকে সাত থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত। উৎপাদনকারীরা সবজির উজ্জ্বলতা ও চমৎকার দেখানোর জন্যে কীটনাশক ব্যবহার করার দিন বা পরের দিনই ওই সবজি বিক্রি করে। সাধারণত দুই থেকে চার হাত বদল হয়ে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে খুচরা বাজার হয়ে ভোক্তার কাছে পৌঁছায়। কীটনাশক কীটপতঙ্গ মেরে ফেলে। তবে এর উপাদান সবজিতে মিশে যায়। এ কারণে কীটনাশক ব্যবহার করার এক বা দুই দিনের মধ্যে সংগ্রহ করা সবজিতে সেই বিষ থেকে যায়, যা রান্নার তাপেও বিনষ্ট হয় না। আর কীটনাশকের প্রতিক্রিয়ায় মাটি ও পানিতে থাকা অনেক উপকারী অনুজীবও মারা যায়। কীটনাশকের ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়ায় আমরা প্রাকৃতিক লাঙ্গল হিসেবে পরিচিত কেঁচো হারিয়ে গেছে। উপরন্তু খাদ্য-শৃঙ্খলে এক ভয়াবহ ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে। এতে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে; জীববৈচিত্র্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তবে বাংলাদেশে যেসব সবজির আবাদ হয় তাতে কীটনাশক ব্যবহার না করলে ভালো ফলন পাওয়া যায় না।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, দেশে সবজি উৎপাদনে শীর্ষে রয়েছে পাবনার চলনবিল অঞ্চল। দেশের সবজি চাহিদার প্রায় ২৫ ভাগ সবজির জোগান আসে এই অঞ্চলের উৎপাদিত সবজি থেকে। চলনবিলের চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর, শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া, তাড়াশ, সিংড়া, গুরুদাসপুর, রায়গঞ্জ এই ৯টি উপজেলায় উৎপাদন হয় ২৫ রকমের সবজি। আবহাওয়া ও মাটি সবজি চাষের উপযোগী হওয়ায় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবছরেই এ অঞ্চলে উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে সবজি চাষ। কিন্তু কৃষকরা ভালো ফলনের আশায় এবং পোকা-মাকড় থেকে রক্ষা পেতে সবজি চাষে ব্যবহার করছেন অতিরিক্ত কীটনাশক। বিশেষ করে শীতকালীন সবজি শিম, বেগুন ও কপি চাষে ব্যবহার করা হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক। সেখানকার সবজিচাষিদের মতে, বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় শীত মৌসুমে সবজি চাষে কীটনাশক ব্যবহার বেড়ে যায় দ্বিগুণ। এ সময় কৃষকরা মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক প্রয়োগ করেন ক্ষেত থেকে ভালো সবজি উৎপাদনের জন্য।

সবজিতে কীটনাশকের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে গ্যাস্ট্রোএনট্র্রোলজিস্ট ডা. দীপঙ্কর নাগের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবজিতে ব্যবহৃত কীটনাশক বা বিষ খাবারের সঙ্গে মানুষের শরীরে প্রবেশ করছে। কারণ সব কীটনাশকের ক্রিয়া রান্নার তাপে যায় না। ফলে ওই বিষ মানব শরীরে নানা প্রতিক্রিয়া তৈরি করে। সাধারণভাবে এখনকার অনেক রোগই এসব বিষের প্রতিক্রিয়ায় হয়ে থাকে। যেমন ক্যান্সার, হৃৎপি-, পরিপাকতন্ত্র প্রভৃতির সমস্যা এই বিষের প্রতিক্রিয়ায় বাড়ছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীএপ্রিল - ২৮
ফজর৪:০৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩১
মাগরিব৬:২৮
এশা৭:৪৫
সূর্যোদয় - ৫:২৭সূর্যাস্ত - ০৬:২৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৩৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.