নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯
চট্টগ্রাম বিএনপি'তে নেতৃত্ব সঙ্কট চলছেই
জনতা ডেস্ক
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির নেতৃত্ব সংকট লেগেই আছে। দলীয় কোন্দল কিংবা প্রভাব বিস্তার নিয়ে দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে সেই পুরনো রশি টানাটানি এখনো অব্যাহত আছে। এজন্য কেন্দ্রীয় কর্মসূচীও পালিত হচ্ছে দায়সারাভাবে। বর্তমানে মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন আছেন কারাগারে। আর গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে আত্মগোপনে আছেন সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্করও। এখানকার বাসিন্দা অপর সিনিয়র নেতারা আছেন ঢাকায় আড়ালে। ফলে নেতৃত্বের সংকট আরো ঘনীভূত হচ্ছে দলটির নগর কমিটিতে। আবার থানা এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে আছে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব। এমন পরিস্থিতিতে নগরীতে আগামি দিনের কর্মসূচি বাস্তবায়ন নিয়ে দলটির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা নানা সন্দেহ প্রকাশ করছেন। ওদিকে দীর্ঘদিন ধরেই সংকট আছে উত্তর জেলা বিএনপিতে। দ্বন্দ্ব আছে দক্ষিণ জেলায়ও। দলকে শক্তিশালী করতে ইতঃপূর্বে নেওয়া হয়নি বাস্তব পদক্ষেপ। ফলে এলোমেলোভাবে সাংগঠনিক কর্মসূচি পালিত হচ্ছে উত্তর ও দক্ষিণ জেলা বিএনপিতেও। দলীয় একাধিক নেতৃবৃন্দ জানান, গত ৮ফেব্রুয়ারি বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে কর্মসূচি পালন করতে

গিয়ে আটক হয়েছেন চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনসহ ২০জন দলীয় নেতাকর্মী। ওইদিন পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছিল দলীয় কার্যালয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের। পরে সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় কারাগারে যেতে হয় ডা. শাহাদাত হোসেনসহ আটক অপর আসামিদের। ওই মামলার আসামি আত্মগোপনে আছেন সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর। এতে সভাপতি-সম্পাদকের মধ্যে দূরত্বের কারণেই রায়ের দিন কোন ধরনের সমাবেশ বা মিছিল করতে পারেনি নগর বিএনপি। এমন ধরনের অভিযোগ করেছেন- দলীয় একাধিক কর্মী। এমনকি শহরে পূর্ব ঘোষিত স্পটগুলোতেও হয়নি কোন সমাবেশ। উপজেলা এবং থানা গুলোতে নেতারা ছিলেন অনেকটা নিরব। এমন ধরনের সমন্বয়হীনতার কারণে দলীয় কার্যালয়ে হাতেগোনা নেতাকর্মীর বাইরে বড় ধরনের লোক সমাগম ঘটেনি সেদিন। তৃণমূল নেতাদের মতে, দলীয় কার্যালয়ে লোক সমাগম বেশি থাকলে পুলিশ সেখানে প্রবেশ করে না। কিন্তু সভাপতি-সম্পাদকের ওই দ্বন্দ্বের কারনেই সেদিন লোক সমাগম ছিল নগন্য। তাছাড়া লোকজন একত্র করতে কোন ধরনের সঠিক কাজও করা হয়নি। বর্তমানে ডা. শাহাদাতের অনুপস্থিতে তার অনুসারি হিসেবে পরিচিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেমের অনুসারিদের মধ্যে আরো দূরত্ব তৈরি হবে। যা দলের আগামি দিনের কর্মসূচিতে প্রভাব পড়তে পারে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত নগর বিএনপির অবস্থান কর্মসূচি এবং এর আগে গত কয়েক দিনের কর্মসূচীতে দেখা যায় নি আবুল হাশেম বক্করকে। নেতৃত্বের সংকট আছে উত্তর জেলায়ও। পাশাপাশি দলীয় দ্বন্দ্বের কারণে ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচি পালিত হচ্ছে না দক্ষিণ জেলায়ও। ইউনিয়ন কিংবা গ্রামে গ্রামে দলীয় সাংগঠনিক ভিত্তিও নড়বড়ে। ইতঃপূর্বে জেলার নানা জায়গায় বিএনপি এবং অঙ্গসংগঠনের গঠিত কমিটিতে টাকার বিনিময়ে অযোগ্য ব্যক্তিদের ঠাঁই হয়েছে বলে দলের মধ্যে জোরালো গুঞ্জন রয়েছে। এতে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন। কিন্তু যারা টাকার বিনিময়ে কমিটি করেছেন তারা দলের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীতে থাকাতো দূরের কথা; তাদের মধ্যে কারও কারও মোবাইল ফোনও বন্ধ থাকে। আবার দলীয় কর্মসূচীতে কতিপয় নেতারা মোবাইল ফোনে সেলফি তোলা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এ ধরনের নেতাদের কারণে বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মীরাও নিউজ কাভারেজ করতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এটা নিয়েও বহু অভিযোগ আছে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের। ওদিকে আরেক শ্রেণির বিএনপি নেতাদের সাথে সরকার দলীয় নেতাদের সু-সম্পর্ক রয়েছে। এজন্য তাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক মাঠে কথা বলতেও আগ্রহ নেই বিএনপি নেতাদের। এমন পরিস্থিতিতে দলের আরো সংকট তৈরী হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে দলীয় কোন্দল প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর সাংবাদিকদের বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির নেতৃত্বে কোন সংকট কিংবা দলীয় কোন্দল নেই। এ ছাড়া জেলার অন্য কোথাও দলের সংকট সৃষ্টি হয়নি। আগামীতে আমরা আরো সংঘবদ্ধভাবে মাঠে থাকবো। দলটির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম বলেন, সভাপতির অবর্তমানে সিনিয়র সহ-সভাপতি ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন। এতে সমস্যা হওয়ার কিছু নেই। আগে যেভাবে দলীয় কর্মসূচি পালন করতো এবারো সেরকমই হচ্ছে। দক্ষিণেও কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। দলের অভ্যন্তরীণ সমস্যা নেই।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ২২
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫০
মাগরিব৫:৩০
এশা৬:৪৩
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৫
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫২৯৬.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.