নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ২৫ জানুয়ারি ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৬, ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১
ই-পাসপোর্টে বাংলাদেশের সুদিন
ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট (ই-পাসপোর্ট) চালুর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ ও বাস্তবায়নে আরও একধাপ অগ্রসর হলো বাংলাদেশ। ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট প্রবর্তনের মধ্য দিয়ে টেম্পারমুক্ত ই-পাসপোর্ট ব্যবস্থা এবং উল্লেখযোগ্য এলিট (অভিজাত) দেশগুলোর গ্রুপে ঢুকছে বাংলাদেশ। বিশ্বব্যাপী কর্মরত বাংলাদেশের নাগরিকদের নিরাপত্তা জোরদার এবং ভুয়া পাসপোর্ট প্রতিরোধে ই-পাসপোর্টের সূচনা একটি ইতিহাস। দেশের জন্য এ প্রকল্প বিশ্বের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রয়োজনীয়তা পূরণ করাসহ ইলেকট্রনিক ট্রাভেল ডকুমেন্টের পথে রূপান্তরের একটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। ই-পাসপোর্ট বাংলাদেশের নাগরিকদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণ আরো সুবিধাজনক ও নিরাপদ করবে। একই সঙ্গে এটি বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তায়ও ভূমিকা রাখবে বলে আমরা আশা করি।

ই-পাসপোর্ট প্রচলনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশ্বের ১১৯তম দেশ হলেও দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম। এছাড়া এবারই প্রথম প্রবাসী কর্মী ও শিক্ষার্থীদের জন্য অপেক্ষাকৃত কম টাকায় পাসপোর্ট প্রাপ্তির সুযোগ করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ, যা অবশ্যই প্রশংসনীয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে প্রথম একটি ই-পাসপোর্ট তুলে দিয়ে শুরু হয় এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। তবে আপাতত এই সুবিধা কেবল ঢাকার আগারগাঁও, উত্তরা ও যাত্রাবাড়ী পাসপোর্ট অফিস থেকে পাওয়া যাবে। পরে চলতি বছরের মধ্যেই সারাদেশে চালু হবে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিশেষ করে উন্নত দেশগুলোতে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা যাতে সহজে ই-পাসপোর্ট পেতে পারে তা নিশ্চিত করবে সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন বিভাগ।

জানা যায়, ই-পাসপোর্টে ৩৮ ধরনের নিরাপত্তা ফিচার থাকবে। বর্তমানে এমআরপি ডেটাবেসে যেসব তথ্য আছে, তা ই-পাসপোর্টে স্থানান্তর করা হবে। পাসপোর্টের মেয়াদ হবে বয়সভেদে ৫ ও ১০ বছর। ই-পাসপোর্ট চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এমআর পাসপোর্ট বাতিল হয়ে যাবে না। তবে কারও পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে তাকে এমআরপির বদলে ই-পাসপোর্ট নিতে হবে। বর্তমানে বই আকারে যে পাসপোর্ট আছে, ই-পাসপোর্টেও একই ধরনের বই থাকবে। এখন পাসপোর্টের বইয়ের শুরুতে ব্যক্তির তথ্যসম্বলিত যে দুটি পাতা আছে, ই-পাসপোর্টে তা থাকবে না। সেখানে থাকবে পলিমারের তৈরি কার্ড। যে কার্ডের মধ্যে থাকবে একটি চিপ। সেই চিপে পাসপোর্টের বাহকের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে। ই-পাসপোর্টের সব তথ্য কেন্দ্রীয়ভাবে সংরক্ষিত থাকবে পাবলিক কি ডাইরেকটরিতে (পিকেডি)। আন্তর্জাতিক এই তথ্যভা-ার পরিচালনা করে ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইসিএও)। ইন্টারপোলসহ বিশ্বের সব বিমান ও স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ এই তথ্যভান্ডারে ঢুকে তথ্য যাচাই করতে পারে।

ই-পাসপোর্ট এক অত্যাধুনিক পদ্ধতি। যাদের চিন্তা ও প্রচেষ্টায় ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন হলো তাদেরকে আমাদের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীআগষ্ট - ৮
ফজর৪:০৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৪০
এশা৭:৫৯
সূর্যোদয় - ৫:৩১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৫
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৩৭৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.